মুখাশিল্পের হাত ধরে জীবন পাল্টাচ্ছে মহিষবাথানের

বিভিন্ন ধরনের রকমারি মুখা পরে গম্ভীরা নাচের কথা তো কম বেশি সবাই জানেন। এবার এই মুখা শিল্পের হাত ধরেই নিজেদের জীবনযাত্রা পরিবর্তন আনছেন মহিষবাথানের বাসিন্দারা।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুশমন্ডি ব্লকের মহিষবাথান এলাকার মুখা শিল্প রাজ্য সহ সমগ্র দেশ জুড়ে জনপ্রিয়। দিন দিন জনপ্রিয় মুখা শিল্পের চাহিদা বাড়ছে কুশমন্ডি ব্লকের দেউল গ্রাম পঞ্চায়েতে অবস্থিত মহিষবাথান এলাকায়। বিগত কয়েক বছরে এই মুখা শিল্পের ওপর ভিত্তি করেই জীবন জীবিকা গড়ে উঠেছে নতুন করে বহু মানুষের।

জানা গেছে , অতীত কালে বছরের বিশেষ সময়ে ধান কাটার জন্য রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষজন বিশেষ পুজো আয়োজন করতেন। সেই সময়ই বিভিন্ন দেবদেবীর মুখা পরিধান করে গম্ভীরা নৃত্য করা হত। প্রাচীন এই রীতির কথা মাথায় রেখে মহিষবাথান এলাকার মানুষজন বংশ পরম্পরায় বহু যুগ ধরে মুখা তৈরি করে আসছেন।

বর্তমানে আধুনিক যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে মুখার জনপ্রিয়তা বাড়ছে। ইতিমধ্যেই জেলা ছাড়িয়ে রাজ্য এবং রাজ্য ছাড়িয়ে বিভিন্ন দেশে কুশমন্ডির মহিষবাথানের মুখা পৌঁছে গেছে। মহিষবাথান গ্রামীণ হস্ত শিল্প কেন্দ্রে এলাকার মানুষজন মুখা তৈরির প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে সারা বছর তৈরি করা মুখা বিক্রির সব রকম সাহায্য পেয়ে থাকেন।

21