মালিকের অজান্তেই একই বাড়ি বিক্রি হল 22 বার,মাথায় হাত মালিকের

ওয়েবডেস্কঃ একই বাড়ি বিক্রি হয়েছে একবার বা দুবার নয় বাইশ বার তাও আবার মালিকেরই অজান্তে। এমনই নয়া প্রতারণার ফাঁদে পড়ল পুনের নন্দনবন নামের আবাসনের মালিক। ঘটনাটি প্রথম নজরে আসে দত্তাত্রেয় সতভাই নামের এক জমি রেজিস্ট্রি অফিসারের।

কয়েক মাস আগে সিদ্ধার্থ নামের এক আইনজীবী ওই রেজিস্ট্রারের কাছে অভিযোগ করেছিলেন, যে নন্দনবন আবাসনটি নিয়ে প্রতারণা চলছে। অনৈতিক কেনাবেচা সংক্রান্ত প্রতারণা করা হচ্ছে আবাসনটিকে। অভিযোগ শুনে খোঁজ শুরু করেন ওই অফিসার। তারপরেই উঠে আসে চাঞ্চল্যকর কিছু তথ্য।

জানা যায়,ওই আবাসনটি চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এক ব্যক্তির নামে রেজিস্ট্রি করা হয়েছিল। সাথেই একই আবাসন আরও বেশ কয়েকজনের নামেও রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। সব ক্ষেত্রে ক্রেতার নাম ভিন্ন ভিন্ন। তবে বিক্রেতা একই। এর থেকেই সন্দেহ দানা বাঁধে ওই রেজিস্ট্রারের মনে। আরও ভালো করে খোঁজ করে তিনি জানতে পারেন, ওই আবাসনটিকে বেশ কয়েকবার বিভিন্ন মানুষের কাছে বিক্রি করা হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হন। এবং ঘটনাটি সবিস্তারে জানিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

তদন্তে জানা গেছে, ৪ জন মহিলা এবং একজন রিয়েল এস্টেট এজেন্ট মিলে এমন প্রতারণার চক্রান্ত করেছে। আরও জানা যায়, যে ওই আবাসনের আসল মালিকও নাকি চারজন। পুলিশের সামনে, তাঁদেরই অন্যতম অঞ্জলি গুপ্তার বয়ানে, ঘটনা, জলের মতো পরিষ্কার হয়। তাঁর মতে গত বছর ওই আবাসনটি বিক্রি করার কথা ভেবেছিলেন তাঁরা। তাই বেশ কিছু রিয়েল এস্টেট এজেন্টের সঙ্গে তাঁরা কথা বলেন। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁদের প্রধান দাবি ছিল একজন সঠিক ক্রেতার খোঁজ পাওয়া। সেই মতো বিগত এক বছর ধরে বিভিন্ন ক্রেতা ওই আবাসন দেখতে আসেন। প্রত্যেককেই দায়িত্ব নিয়ে আবাসন ঘুরিয়ে দেখানো হয়। এমনকি ব্যাঙ্ক থেকেও আবাসনের মাপ-জোক করার জন্য বিভিন্ন লোক আসে। তাঁদের সঙ্গেও সহযোগিতা করেছিলেন আবাসনের আসল মালিকরা। কিন্তু এসবের আড়ালে যে পাঁচজন প্রতারক এমন ভয়ানক ষড়যন্ত্র করছিল তাঁদের সম্পত্তি নিয়ে, তা তাঁরা টেরও পাননি।

তদন্ত করে জানা যায় আসলে ক্রেতা হিসেবে যারা আবাসনটি দেখতে এসেছিলেন তাঁদের প্রত্যেককেই আবাসনটি বিক্রি করে ওই প্রতারকের দল। রেজিস্ট্রি অফিস থেকে জানা যায় মোট ২২ বার ওই একই আবাসন রেজিস্ট্রি করা হয়েছে বিভিন্ন ক্রেতার নামে। তবে সব ক্ষেত্রেই বিক্রেতার নাম এক ছিল। বারংবার রেজিস্ট্রি করলেও যাতে ধরা না পড়ে তাই প্রয়োজনমত ভুয়ো পরিচয়পত্র ব্যবহার করত ওই প্রতারকের দল। পুলিশ সূত্রের খবর ইতিমধ্যেই ওই ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

11