তবে কি রক্ষকই ভক্ষক? সীমান্তে গণধর্ষণ তরুণীকে,গ্রেফতার ২ জওয়ান

ওয়েবডেস্কঃ

তরুণীর কোলের সন্তানকে ছুঁড়ে ফেলে ‘গণধর্ষণ’জওয়ানের। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ উত্তর ২৪ পরগনার বাগদা থানার জিতপুর ভারত বাংলা সীমান্তে। ঘটনার জেরে গুরুতর অসুস্থ ওই তরুণী। মানসিকভাবেও ভেঙে পড়েছেন। বর্তমানে হাসপাতালে ভরতি রয়েছেন তিনি। মহিলার অবস্থা যথেষ্ট আশঙ্কাজনক বলেই খবর।

ঘটনায় বিএসএফের এক এএসআই ও একজন কনস্টেবলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।ওই তরুণীর লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দুই বিএসএফ জওয়ানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।দুজনকেই সাসপেন্ড করারপর তাদের পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

অভিযোগ, ২৩ বছরের এক মহিলা বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ জিতপুর সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে যাওয়ার সময় কর্তব্যরত বিএসএফ জওয়ানরা তাকে আটকে দেয়। অভিযোগ, এরপরেই তাকে পাশের পটল খেতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে ধর্ষণ করা হয়। ঘটনার সময় মহিলার সঙ্গে তার শিশুসন্তানও ছিল। তাকে ছুঁড়ে ফেলে দেয় ওই দুই বিএসএফ জওয়ান। মহিলার বাড়ি বসিরহাটে। পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টি বিএসএফ-এর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

ধৃতদের নাম আলতাফ হোসেন এবং এস পি চেরো। চেরো এসআই পদে রয়েছে। আলতাব কনস্টেবল। ধৃতরা বিএসএফের ৬৮ নম্বর ব‌্যাটেলিয়নে কর্মরত।

বনগাঁ সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল সভাপতি বিশ্বজিৎ দাস বলেন, “যাদের উপর সুরক্ষার দায়িত্ব তারাই যদি এভাবে ধর্ষণের ঘটনার সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়ে, তাহলে সীমান্তে কে নিরাপত্তা দেবে? এই ঘটনায় বোঝা যায় সীমান্তে বিএসএফ কী করে বেড়ায়। আসলে কেন্দ্রীয় সরকার যেরকম উচ্ছৃঙ্খলতার সঙ্গে চলছে তার প্রভাব পড়ছে কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলির উপরেও। ধৃত দু’জনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত।”

অন্যদিকে, দিলীপ ঘোষ বলেন, “এর আগে কাশ্মীরে সেনার বিরুদ্ধে একাধিক এধরনের অভিযোগ ছিল। বেশিরভাগই মিথ্যে। তবে এই ঘটনাটি জানিনা সত্যি নাকি মিথ্যে যদি সত্যি হয়ে থাকে তবে তা ভয়ংকর অপরাধ। উপযুক্ত শাস্তি হওয়া উচিত।”

23