দীর্ঘ মৈত্রীর অবসান? ইউক্রেন প্রসঙ্গে প্রথমবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দিল ভারত

ওয়েবডেস্কঃ তবে কি রাশিয়ার সঙ্গে ভারতের দীর্ঘ মৈত্রীর অবসান ঘটল?

ফেব্রুয়ারি মাসে ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু করে রাশিয়া। ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও থামেনি যুদ্ধ। রাশিয়া ও ইউক্রেনের যুদ্ধের বিষয় নিয়ে গত ৬ মাসে বিভিন্ন সময়ে আলোচনা হয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে। নিরাপত্তা পরিষদের এই সংক্রান্ত বিষয়ে ভোটাভুটিও হয়েছে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই ভোটাভুটি থেকে নিজেকে বিরত রেখেছিল ভারত।

কিন্তু, এই প্রথম রাষ্ট্রপুঞ্জে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দিল ভারত। রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদে ইউক্রেন ইস্যুতে প্রথম বার রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দিল ভারত। বুধবার রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি ভিডিয়ো টেলিকনফারেন্সে যোগ দেবেন কি না, তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। জেলেনস্কির বৈঠকে যোগ দেওয়া নিয়ে বিরোধিতা করে রাষ্ট্রপুঞ্জে উপস্থিত রাশিয়ার প্রতিনিধি। তখনই বিষয়টি নিয়ে সমাধানের জন্য ‘পদ্ধতিগত ভোটে’র আয়োজন হয়। সেই ভোটেই রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দেয় ভারত।

২৪ আগস্ট ইউক্রেনের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জেলেনস্কিকে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। তিনি বক্তব্য পেশ করতে পারবেন কিনা, সেই বিষয়টি নিয়েই ভোটাভুটি শুরু হয়। স্বভাবতই প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দেয় রাশিয়া। বরাবরের অবস্থান বজায় রেখে ভোটদান থেকে বিরত থাকে চিন। পনেরো সদস্যের মধ্যে প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় ভারত-সহ তেরোটি দেশ। কিন্তু প্রথমবার প্রকাশ্যে রাশিয়ার বিরুদ্ধে গেল ভারত। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে ভারতের তরফে নিরপেক্ষ অবস্থান গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে।

যদিও, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসাবে ভারতের মেয়াদ ফুরিয়ে এসেছে। আগামী ডিসেম্বরেই নিরাপত্তা পরিষদ থেকে বিদায় নিতে হবে ভারতকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট না দেওয়ার কারণে ভারতের উপরে বেশ ক্ষুব্ধ পশ্চিমি দেশগুলি। ফলে ওয়াকিবহাল মহলের অনুমান, পশ্চিমি দেশগুলির সুনজরে থাকতেই হয়তো নতুন কৌশল নিচ্ছে ভারত।

22