দুর্গাপূজার সরকারি অনুদানের সিদ্ধান্তে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হাইকোর্টে

ওয়েবডেস্কঃ সোমবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে পুজোর বৈঠকে ঘোষণা করা হল, রাজ্যে ৪৩ হাজার ক্লাবকে ৬০ হাজার টাকা করে দেবে রাজ্য। একইসঙ্গে ছাড় দেওয়া হবে বিদ্যুৎ বিলে। বিদ্যুৎ বিলে ছাড় দেওয়ার ব্যাপারে সিইএসসি এবং রাজ্য বিদ্য়ুৎ পর্ষদের কাছে অনুরোধ করা হবে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

অন্যদিকে, রাজ্য সরকারের আর্থিক অবস্থা যে বর্তমানে খুব একটা ভাল নয়, তা সোমবার বিকেলে নিজেই স্বীকার করে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেছেন, “ভাঁড়ার শূন্য”। তবু বাঙালির প্রিয় দুর্গোৎসবের জন্য ক্লাবগুলিকে যে অনুদান দেওয়া হয়, তার পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছেন মমতা। আগে দেওয়া হত ক্লাবপিছু ৫০ হাজার টাকা করে। এই বছর তা আরও ১০ হাজার টাকা বাড়িয়ে ৬০ হাজার টাকা করা হয়েছে। রাজ্যে মোট ৪০ হাজার ৯২ টি ক্লাবকে অনুদান দেওয়া হয়। হিসেব মতো, এই সব ক্লাবগুলিকে অনুদান দিতে গেলে মোট যা খরচ পড়বে, তা হল ২৪০ কোটি ৫৫ লাখ ২০ হাজার টাকা।

কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, যে পরিমাণ টাকা পুজোয় স্রেফ অনুদান হিসেবে বিলি করছে রাজ্য সরকার, তা ২০২২-২৩ অর্থবর্ষে রাজ্য সরকারের বাজেট বিবৃতিতে একাধিক ক্ষেত্রে প্রস্তাবিত আর্থিক বরাদ্দের তুলনায় অনেকটা বেশি।রাজ্য সরকারের এমন বেহাল আর্থিক অবস্থার মধ্যেও অনুদানের অঙ্ক বাড়ানোর এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেই এবার কলকাতা হাই কোর্টে দায়ের হল জনস্বার্থ মামলা।

মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন আইনজীবীদের একটি সংগঠন। বুধবার এই মর্মে করা জনস্বার্থ মামলাটি দায়েরের অনুমতিও দিয়েছেন হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি। দ্রুত শুনানির আরজিও করা হয়েছে উচ্চ আদালতের কাছে। শুক্রবার মামলার পরবর্তী শুনানির সম্ভাবনা।

পাশাপাশি, রাজ্যের সিদ্ধান্তকে ‘দিশাহীন’ বলে কটাক্ষ করেন বিজেপি মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য। শুধু তাই নয়, এই অর্থ ক্লাবগুলিকে না দিলে রাজ্যে কী কী উন্নতি করা যেত, সেই হিসাবও তুলে ধরে বিজেপি।

17