বদলি মামলায় নয়া মোড়, সিঙ্গল বেঞ্চের CBI তদন্তের নির্দেশে স্থগিতাদেশ ডিভিশন বেঞ্চের

ওয়েবডেস্কঃ

২০১৬ সালে শিলিগুড়ি শ্রীগুরু বিদ্যালয়ের সহ-শিক্ষিকা হিসেবে যোগ দেন শান্তা মণ্ডল। ২০১৯ সালে তিনি প্রধান শিক্ষিকার পদের জন্য পরীক্ষা দেন। তিনি বীরপাড়া গার্লস স্কুলে যোগ দেওয়ার জন্য সুপারিশপত্র পান। এর এক বছরের মধ্যে তিনি শিলিগুড়ি অমিয়পাল চৌধুরী স্কুলে যোগ দেওয়ার সুপারিশ পান। তবে তিনি সেখানে যোগ দেননি।

এরপর যেখানে আগে সহ-শিক্ষিকা হিসেবে ছিলেন অর্থাৎ শ্রীগুরু বিদ্যামন্দিরে যোগ দেওয়ার চেষ্টা করেন। স্কুল সার্ভিস কমিশন তাঁকে নিয়োগও করে।এরপরই ওই স্কুলের শিক্ষক প্রসূনসুন্দর তরফদার কলকাতা হাই কোর্টের প্রিন্সিপাল বেঞ্চে অভিযোগ করেন। প্রশ্ন ওঠে, কীভাবে চাকরির মেয়াদ ৫ বছর হওয়ার আগেই এতবার বদলি?

১১ অগাস্ট বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের ডিভিশন বেঞ্চে শান্তা মণ্ডলের হয়ে আবেদন করেন বিশিষ্ট আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। সিবিআই তদন্তের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে যান শান্তা মণ্ডল। এদিকে গতকালই শিক্ষিকার বিরুদ্ধে এফআইআর করে সিবিআই।আর শুক্রবার বিচারপতি রবি কিষাণ কাপুর ও বিভাস পট্টনায়কের ডিভিশন বেঞ্চ রায় দেন স্থগিতের। চার সপ্তাহ পরে ফের মামলাটি শুনানির জন্য উঠবে।

53