রায়গঞ্জ ইউনাভার্সিটি কলেজে বেপরোয়া বেআইনি নিয়োগ চরম অব স্থার বিরুদ্ধে পথে নামলেন প্রাক্তনীরা।

ওয়েবডেস্কঃ

পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষা ব‍্যবস্থার কলঙ্কজনক পুতিগন্ধময় দুরবস্থা উন্মোচনের প্রেক্ষিতে সহনাগরিকদের সম্মিলিত প্রতিবাদ জানিয়ে উত্তর দিনাজপুর প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন প্রাক্তনী তাপস ঘোষ, প্রদীপ বিশ্বাস, তিলক ভৌমিক, গৌর শঙ্কর মিত্র, সুদেব দাস, কনক সেন প্রমুখ।
তাপস ঘোষ বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রে অনৈতিকতা শুরু হয়েছে। শিক্ষার উপর চরম আঘাত এসেছে এই সরকারের সময় কালে।

অত্যন্ত দুঃসময়ের মধ্য দিয়ে রাজ্য টা যাচ্ছে । রায়গঞ্জ ইউনিভার্সিটি কলেজের প্রাক্তনী হিসেবে এবং সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিজেদের কর্মজীবন শেষে বরিষ্ট নাগরিক জীবনে রায়গঞ্জ ইউনিভার্সিটিতে অনৈতিক ভাবে শিক্ষক নিয়োগ, আধিকারিক নিয়োগের যে অভিযোগ তা কাম্য নয়। এক কথায় সহনশীলতার শেষ সীমায় পৌঁছে গেছে সরকার প্রশাসন।

শিক্ষা ব্যবস্থার উপর সংঘবদ্ধ পরিকল্পিত আক্রমণ ১১ বছর ধরে চলছে। এখন বিভিন্ন তদন্তকারী দল চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে শিক্ষক নিয়োগে ব্যপক দুর্নীতি, শিক্ষার উপর এই আক্রমণের বীভৎসতা। ধ্বংস করা হয়েছে সামাজিক, গণতান্ত্রিক কাঠামোগুলো। বহির্বিশ্বে বাঙ্গালীদের চোর প্রতিপন্ন করার কৃতিত্ব এই সরকারের অন্যতম সাফল্য। এই সরকারের শুরু থেকেই শিক্ষকতার পদ বিক্রয়ের জন‍্য প্রাথমিকভাবে আঞ্চলিক এস এস সি অফিস গুলোকে নিষ্ক্রিয় করে জেলায় জেলায় শিক্ষক-পদ বিক্রয়ের ব্যবস্থা হয়েছে।
রাজ্য সরকারের প্রচ্ছন্ন পৃষ্ঠপোষকতায় নির্বিচারে যোগ্যদের বঞ্চিত করে অযোগ‍্যই বেশী শিক্ষকের পদে চাকুরী বিক্রয় হয়েছে।

শাসক সরকারের সংঘঠিত দুর্নীতির শিকার বিশেষতঃ বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম অভিযোগ তুললেন প্রাক্তনীদের সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তথা মধ্য শিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন আধিকারিক প্রদীপ বিশ্বাস ।
মুখ্যমন্ত্রী দাবী করছেন তিনি কিছুই জানেন না ! যার সব কিছু জানা থাকে তিনি এতো বড় কেলেঙ্কারি জানেন না? তাহলে মুখ্যমন্ত্রীর অবিলম্বে পদত্যাগ করুন, দাবী করলেন প্রাক্তনী সুদেব দাস।

এই চরম অব্যবস্থার বিরুদ্ধে রাজনীতির উর্ধ্বে উঠে , দলমত নির্বিশেষে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে রায়গঞ্জ ঘড়ি মোড়ে কয়েকশ শিক্ষক শিক্ষাকর্মী প্রাক্তন আধিকারিক, ছাত্র ছাত্রী অধ্যাপকরা। সমাজ ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করার দাবী তুলে ঘড়ি মোড় থেকে প্রাক্তনীদের মিছিল শুরু হয় রায়গঞ্জে। মহাত্মা গান্ধীর মুর্তির সামনে এসে মিছিল শেষ হয়।

19