কুলিক রোববার:সাহিত্য প্রসঙ্গ: পর্ব ৬

ভাস্কর চৌধুরী

কবি শামসুর রাহমান ও কবি আল মাহমুদের সাথে আড্ডা


১৯৭৬ মাসের ফেব্রুয়ারি মাসে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের বইমেলার আয়োজন হয়। একুশে ফেব্রুয়ারি ছিলো বইমেলার উপলক্ষ। আমরা শুনলাম , কবি শামসুর রাহমান ও কবি আল মাহমুদ মেলা উপলক্ষে আসবেন। কবিতা সারথি জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত। তাই তাঁর সাহায্য নিয়ে কবিতা সারথি দুই দিনে দুটি অনুষ্ঠান সেট করলো। আমরা আজ যেনো পুরো জাতির মেধার সাথে একত্ব। আমাদের মাথার উপর বটগাছের ছায়ার মতো হাসান স্যার দাঁড়িয়ে থাকেন।
কবিতা সারথি সেই সময় প্রথমে কবি আল মাহমুদ এর সাথে কবিতা পাঠের অনুষ্ঠান করে। সেখানে তার লিখা একমাত্র এবং বাংলা সাহিত্যে আজো ভিন্নমাত্রার গল্পগ্রন্থ “পানকৌড়ির রক্ত” নিয়ে অনেক প্রশ্ন আসে। কেউ কেউ “সোনালী কাবিন” এর কবিতা নিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করেন । তিনি জবাবে একটি কথা আমাদের জানিয়ে দেন, তাঁর কবিতায় স্বদেশের চিত্রকল্প ছাড়া কিছু নেই। গল্পগুলোও দেশের নদীমাতৃক পটভূমিতে লিখা। তিনি বিনয়ের সাথে বলেন, সাহিত্য নিয়ে বেশি পাকামী ও বিশ্বসাহিত্য নিয়ে বেশি মাতামাতি এবং লেখাপড়া করলেই তাঁর কাছ থেকে স্বদেশ হারিয়ে যায়। এই বেদনার কথা ব্যক্ত করে কবি বলেন, দুঃখ হয়, আজো আমরা কবিরা নিজ জন্মভূমিকে সঠিক চিনি না। সাহিত্য করতে গেলে তোমাদের স্বদেশকে ঠিক মাত্রায় জানতে হবে। ভূমি ও নদী, দেশের কালচার , গ্রামীন তন্ময়তা তোমার ভেতর থাকতে হবে। স্বদেশ বুকে বেঁধে বিদেশের সাহিত্যের অনুকরণ করো। অনুসরণ করো।
কথাগুলো বুকে বেঁধে রাখি।
‎পরের দিন কবি শামসুর রাহমান কবিতা সারথিতে কবিতা পড়লেন। সত্যি কথা বলতে আজ ভয়ের কিছু নেই। সাহিত্যের হলো মানুষ ও তার আত্মবিশ্বাস।
‎তিনি পড়লেন তাঁর লিখা কাব্য “এক ধরণের অহংকার” থেকে নাম কবিতা “এক ধরণের অহংকার” কবিতাটি:–

“এখনে দাঁড়িয়ে আছি , এ আমার এক ধরণের অহংকার

বেজায় টলছে মাথা , পায়ের তলায় মাটি সারা দিনমান
পলায়নপর”
‎বুকের ভেতর কাঁপন উঠলো। এ কোন লাইন? কিভাবে নাগরিক কবি লিখেন এমন আত্মবিশ্বাসের কবিতা। মাথার ভেতর কয়েকদিন ঘুরে ফিরে ওই একটি লাইন- এখানে দাঁড়িয়ে আছি এ আমার এক ধরণের অহংকার।
‎উপলব্ধি করলাম সাহিত্যের মূলে আছে , অভিজ্ঞতা ও আত্মবিশ্বাস। এ ছাড়া সাহিত্য শামসুর রাহমানের কবিতার লাইনের মতো করে দাঁড়াতে পারবে না।
‎ এতদিনের সাহিত্য ও আড্ডা , কবিতা সারথিকে ঘিরে আমাদের সাহিত্যে এতদিনের সব আয়োজন এক সুতোয় বাঁধলে উপলব্ধি আসে, সকলেই নিজের মতো করে বুঝিয়েছেন। যেমন করে তারা বুঝেছেন। আমাদেরও পায়ের তলায় স্বকীয় মাটি তৈরি করে নিতে হবে।

24