জেলায়১০০ দিনের কাজের বেনিয়ম!পরিদর্শনে আসছে কেন্দ্রীয় টিম। ছুটি বাতিল পঞ্চায়েত কর্মীদের।

ওয়েবডেস্কঃ

১০০ দিনের কাজের বেনিয়ম সহ অন্যান্য প্রকল্পের কাজ খতিয়ে দেখতে চলতি মাসে ৮ তারিখ আসছে কেন্দ্রীয় পরিদর্শকের টিম। চোপড়া করণদিঘি, রায়গঞ্জ ছাড়াও যেখানে যেখানে অসিত্ববিহীন পুকুর কাটার অভিযোগে খবর সংবাদ শিরোনামে এসেছে সেই সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও অভিযানে আসছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল আসার আগেই ব্লক প্রশাসনের কর্তাদের তৎপরতা এখন তুঙ্গে। বেশ কিছু গ্রাম পঞ্চায়েতে রার জেগে কাগজ পত্র সামানোর কাজ চলছে। পঞ্চায়েত কর্মীদে ফতোয়া এসেছে, শনিবার রবিবার ছুটি বাতিল করে মুখ লুকানোর কাজে চরম ব্যস্ততা।

তবে কোন গ্রাম পঞ্চায়েত কবে খতিয়ে দেখবে তা নিদিষ্টভাবে খবর নেই। দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান দুলাল মণ্ডলের জেলা প্রশাসনের তরফে বৈঠক হয়েছে তবে কবে আসবে, আদৌ আসবে কিনা তা নিদিষ্ট করে জানানো হয়নি।
গত বছর বিভিন্ন অভিযোগের ভিত্তিতে করণদিঘী ব্লকের দোমহনা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও উপ প্রধানকে ৩২ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জরিমানার টাকা কিস্তিতে জমা দেওয়ার জন্যে ব্লক প্রশাসনের কাছে আবেদন করার পরেই শোর গোল পরে যায়। দোমহনা গ্রাম পঞ্চায়েতের ভুলকি গ্রামের বাসিন্দা সি পি আই (এম) নেতা মইদুল হক তথ্য দিয়ে জানান, ১৩ টা পুকুর খনন না করেই কোটি কোটি টাকা আত্মস্যাতের অভিযোগ। বি ডি ও জেলা শাসক জেলা গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তরে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছিলেন। প্রধানের বিরুদ্ধে প্রমাণিত ৯ টা পুকুরে জন্যে ১৩ লাখ ৪ হাজার, উপ প্রধানের বিরুদ্ধে ৫ লাখ ৯৮ হাজার, আগের প্রধান যিনি মারা গেছেন তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ মোট ৩২ লাখ টাকা জরিমানা হয়েছে। পঞ্চায়েতের আইনে দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্তদের জরিমানা কোনো সমস্যার সমাধান নয়। দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্তদের পঞ্চায়েত থেকে বরখাস্ত করতে হবে। এব্যাপারে তিন বার করণদিঘীর বি ডি ও কে সি পি আই (এম) এর পক্ষ থেকে গণ ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন সি পি আই (এম) করণদীঘি এরিয়া কমিটির সম্পাদক আশিষ ঘোষ ওরফে রাজু ঘোষ।

চলতি মাসে কেন্দ্রীয় পরিদর্শক দল পরিদর্শনে আসছে সে ব্যাপারে তিনি আরও এক চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলে জানালেন, ইন্দিরা আবাস যোজনার ঘরের জন্যে গ্রাম পঞ্চায়েত মেম্বারদের ১০-১৫ হাজার টাকা ঘুষ দেওয়া রীতি হয়ে গেছে। এখবর জানাজানি হয়ে যেতেই প্রশাসন মেম্বার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা না নিয়ে কেন্দ্রীয় পরিদর্শক দল পরিদর্শনে আসার আগেই ঘর তৈরি হওয়ার আগে এবং ঘর তৈরীর পরে যে সমস্ত বেকার ছেলেরা ছবি তোলার কাজ করে কিছু টাকা উপার্জন করতো তাদের কে বিনা নোটিশে ছাটাই করে দেওয়া হয়েছে।

সারাভারত কৃষক সভার জেলা সম্পাদক সুরজিত কর্মকার অভিযোগ করে বলেন, কেন্দ্রীয় পরিদর্শক টিম আসার আগেই লজ্জ্বায় মুখ ঢাকতে বিভিন্ন ব্লকে গাছ পৌছে দিয়েছে প্রশাসন। সোমবার থেকে সেই কাজ গ্রামে চলে যাচ্ছে। রাতারাতি গাছ লাগিয়ে লজ্জ্বায় মুখ ঢাকার দিন শেষ। উন্নয়নের নামে যথেচ্ছাচার জেলায় সঠিক পরিদর্শন হলে আরও অনেক গ্রাম পঞ্চায়েত কে দুর্নীতি শিকড় খুজে পাবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে লাগাতার আন্দোলন চলছে, এবার দুর্নীতি আড়াল করলে রাতভর চলবে জেলা প্রশাসনের অভ্যন্তরে আন্দোলন।

63