শুভেন্দুর বাড়িতেও মিলবে গুপ্তধন বিজেপি চোরকে বাঁচাচ্ছে অভিযোগ কুনাল ঘোষের

ওয়েবডেস্কঃ এসএসসি দুর্নীতি নিয়ে একের পর এক ঘটনা ঘটে চলেছে রাজ্য জুড়ে ।কখনো ভুল শিক্ষক শিক্ষিকাদের বাতিল আবার কখনো বা মন্ত্রী গ্রেফতার, এ যেন ঘটনার ঘনঘটা। গত শুক্রবার ম্যারাথন জেরার পরে এডি এর পক্ষ থেকে গ্রেপ্তার করা হলো রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ তার বন্ধু অর্পিতা চট্টোপাধ্যায় কে। ঘটনায় অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়ের দুটি ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে প্রায় পঞ্চাশ কোটি টাকা। কিন্তু এরপরেও থেমে নেই তদন্ত। পার্থঘনিষ্ঠ অর্পিতার মামাবাড়ি ও চালানো হয় তল্লাশি । এই সকল ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য জুড়ে শুরু হয়েছে তিব্র উত্তেজনা। এরপর গতকাল মন্ত্রিসভা এবং দল থেকে বহিষ্কার করা হয় চট্টোপাধ্যায় কে। আরে গোটা ঘটনায় রাজ্য জুড়ে চলছে তুমুল রাজনৈতিক চাপানোতোর।

আজ সকালেই টুইট করে কুণাল দাবি করেছেন, তৃণমূলে থাকাকালীনই শুভেন্দুর বিরুদ্ধে বেশ কিছু দুর্নীতির অভিযোগ উঠছিল। সেকারণেই তাঁকে একাধিক জেলা পর্যবেক্ষকের পদ থেকে সরিয়ে দেন দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কুণালের দাবি, তখন থেকেই অভিষেকের কাছে শুভেন্দুর নামে নানা তথ্য আসা শুরু হয়ে গিয়েছিল। নিজেকে বাঁচাতে দলবদল করেন রাজ্য বিধানসভার বর্তমান বিরোধী দলনেতা।

তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক বলেন, কেন্দ্রীয় এজেন্সি যদি শুভেন্দুর বাড়িতে যেত, তাহলেই তারা গুপ্তধন পেত। শুভেন্দু চোর, তোলাবাজ। তৃণমূলে থাকাকালীন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দুর্নীতির রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছিলেন বলেই অভিষেককে আজ আক্রমণ করেন বিজেপি নেতা। এরপরই সোজা বিরোধী দলনেতার গ্রেপ্তারির দাবিতে সরব হন কুণাল। তাঁর বক্তব্য, “বিজেপি চোরকে বাঁচাচ্ছে, নারদা, সারদাতে ওর গ্রেপ্তারি চাই।”

16