কোনভাবেই লাইসেন্স কাড়তে পারবেনা পুলিশ, নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের

ওয়েবডেস্কঃ

কিছুটা স্বস্তি সাধারণ মানুষের ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করলেও লাইসেন্স কাড়তে পারবে না পুলিশ। কেবলমাত্র বাজেয়াপ্ত করতে পারে পুলিশ এমনই নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

বুধবার কলকাতা হাইকোর্টের একটি মামলার শুনানিতে বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্যের বেঞ্চ জারি করল এমনই এক নতুন নির্দেশিকা। এই নতুন নির্দেশিকা জানানো হয়েছে ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করলেও কারোর ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করতে পারবে না পুলিশ কিন্তু লাইসেন্স বাজেয়াপ্ত করে বাতিলের সুপারিশ জানাতে পারে মাত্র। ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিলের ক্ষমতা রয়েছে একমাত্র লাইসেন্স কর্তৃপক্ষের হাতেই।

খুব সম্প্রতি গাড়ির গতি বেশি থাকার দরুন গত ১৯শে মে সাউথ সিটি মল থেকে আলিপুর যাওয়ার পথে প্রিয়াসা ভট্টাচার্য নামে এক মহিলার ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করে কলকাতা পুলিশ। ট্রাফিক পুলিশের অভিযোগ ওই মহিলা ঘণ্টায় ৬২.১ গতিতে চালিয়েছিলেন গাড়ি যদিও সেই রাস্তায় সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৩০ কিলোমিটার গতিবেগে গাড়ি চালানো যেতে পারে। এবং ৯০ দিনের জন্য ওই মহিলার ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের এসিস্ট্যান্ট কমিশনার।

আর এরপরই ২১শে মে লালবাজার থানায় নিজের ড্রাইভিং লাইসেন্স ফেরত চেয়ে একটি মেইল করেন ওই মহিলা। মহিলার অভিযোগ আবেদন করা সত্ত্বেও ফেরত দেওয়া হয়নি তার লাইসেন্স। এরপর তিনি দ্বারস্থ হন কলকাতা হাইকোর্টের। আদালতে ওই মহিলার আইনজীবী দাবি করেন মোটর ভেহিকেল আইন অনুযায়ী কোন পুলিশেরই ক্ষমতা নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স বাতিল করার। আর এই দাবি মেনে নেয় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্যের বেঞ্চ।

এ বিষয়ে বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য বলেন, ” মামলাকারী যে গতিতে গাড়ি চালিয়েছেন তা অবশ্যই ঠিক নয় কিন্তু ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করলো লাইসেন্স বাতিল করার ক্ষমতা নেই ট্রাফিক পুলিশের, লালবাজার ট্রাফিক কন্ট্রোল বিভাগ শুধুমাত্র বাজে একটা করতে পারে লাইসেন্স কিন্তু লাইসেন্স বাতিল করতে পারে একমাত্র লাইসেন্স কর্তৃপক্ষই”।

47