‘সুচিত্রা সেনের নাতনী’ হওয়া ছিল বিরাট চ্যালেঞ্জ, কি বললেন রাইমা সেন!

ওয়েবডেস্কঃ দিদিমা সুচিত্রা সেন সিনে ইন্ডাস্ট্রির আইডল,মা মুনমুন সেন। প্রথমে ভয়ে ভয়েই অভিনয়ে পা রেখেছিলেন রাইমা। প্রতিনিয়ত অভিনেত্রী মায়ের সঙ্গে তুল্যমূল্য বিচার। দাঁড়িপাল্লা নিয়ে তাঁর অভিনয় দক্ষতা নিরন্তর মাপতেন দর্শক, সে সব নিজেই বুঝতেন রাইমা।তারকা-সন্তানের কাছে দর্শকের প্রত্যাশা ছিল আকাশচুম্বী।

তবে ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘চোখের বালি’ থেকেই ঘুরে দাঁড়ান নায়িকা। ‘আশালতা’র চরিত্রে নিজেকে প্রমাণ করে মানুষের মন কেড়ে নেন। তিনি বলেন, “সেই প্রথম আমায় মুনমুন সেনের মেয়ে বা রিয়ার বোন হিসেবে নয়, রাইমা সেন নামে চিনল সকলে।” তার পরে আর পিছনে ফিরে দেখতে হয়নি।

এক সাক্ষাৎকারে রাইমা বলেন, “তারকা-সন্তানদের জন্য শুরুটা খুব কঠিন। যাঁরা পুরোপুরি নতুন, নিজের চেষ্টায় অভিনয়ে পা রাখছেন, তাঁদের চাপ বরং অনেক কম। কিন্তু যখনই তোমার পরিচয় তারকা-সন্তান, মানুষ চুলচেরা বিচার করবেনই। আমার ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি।”

রাইমা আরও জানান,”দিদিমা সুচিত্রা সেন এক বিরাট উত্তরাধিকার রেখে গিয়েছেন। আমি সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর ছবি দিয়ে বলিউডে পা রাখতে পারিনি। বরং একাধিক চরিত্রে বাতিল করা হয়েছিল আমায়।”

তবে চোখের বালির আশালতাই তাকে সেই প্রতিষ্ঠা এনে দেয়। ‘সুচিত্রা সেন’এর নাতনী হয়ে ওঠে রাইমা সেন। অভিনেত্রী আরও জানান, রাত থাকে বলেই যেমন দিনের গুরুত্বটা বোঝা যায়, তেমনই ব্যর্থতা আছে বলেই সাফল্য উপোভোগ্য হয়ে ওঠে।

30