পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়ার উপর চিরুনি তল্লাশি করতে হয়! এটা কোনও নিয়োগ প্রক্রিয়া হলো?

ওয়েবডেস্কঃ

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির মামলা হাইকোর্টে কেস চলছে। কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের বিচারপতি পর্ষদের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ। এর আগের শুনানিতে উভয়কে লিখিত আকারে বক্তব্যে জানানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি সুব্রত তালুকদার। কিন্তু তারপরেও পর্ষদ লিখিত বক্তব্য জমা করেনি। আর এতেই ক্ষুব্ধ হন বিচারপতিরা

পর্ষদের কাছে জানতে চায় আদালত, কি কারনে শুধুমাত্র কয়েকজনকে বাড়তি ১ নম্বর দেওয়া হয়েছে?

এটা কোনো ক্লাস টেস্ট হচ্ছে না। যেখানে বেছে বেছে শুধুমাত্র কয়েকজনকে বাড়তি ১ নম্বর করে দেওয়া হয়েছে। পরে পর্ষদের মনে হয়েছে সকলকেই ১ নম্বর বাড়ানো দরকার।

এটা নিয়োগের পরীক্ষায় লক্ষ লক্ষ চাকরি প্রার্থীরা পরীক্ষা দিয়েছেন। পর্ষদের এই ভূমিকা আদালতের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। পর্ষদের কি মনে হয় না এই ধরনের ঘটনার জন্য অনুসন্ধানের প্রয়োজন রয়েছে? প্রশ্ন করেন বিচারপতি।

এছাড়াও, আদালত প্রশ্ন করেন, হাতে গোনা কয়েকজন ধড়া পড়েছে, কিন্তু যেগুলোর অভিযোগ আসেনি, তাদের কত নম্বর বাড়িয়েছেন? এবার তো পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়ার উপর চিরুনি তল্লাশি করতে হয়! এটা কোনও নিয়োগ প্রক্রিয়া হলো? এইভাবে নিয়োগ করে?

34