অপরাধীর সাথে নেতা মন্ত্রীর যোগাযোগ বন্ধের দাবি এলাহাবাদ হাইকোর্টের

ওয়েবডেস্কঃ

এলাহাবাদ হাই কোর্ট রাজনীতির সঙ্গে অপরাধীদের জড়িয়ে যাওয়ার পরিসংখ্যানও প্রকাশ করেছে। আদালত জানিয়েছে, ২০০৪ সালে যেখানে ২৪ শতাংশ লোকসভা সাংসদের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ ছিল, সেখানে ২০০৯ সালে সাংসদদের মধ্যে অপরাধে জড়িত ছিলেন ৩০ শতাংশ। ২০১৪ সালে সংখ্যাটা বেড়ে হয় ৩৪ শতাংশ। ২০১৯ সালে সেটা আরও বেড়ে হয় ৪৩ শতাংশ।

এলাহাবাদ হাই কোর্টের লখনউ বেঞ্চ বলছে, “কেউ অস্বীকার করতে পারবে না যে আজকের দিনে রাজনীতি অপরাধীতে ছেয়ে গিয়েছে। ব্যক্তি রাজনীতি, বাহুবল, টাকা, নেটওয়ার্ক, রাজনীতি এবং অপরাধজগতের আঁতাঁত এসবই সুস্থ গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ এবং আইনের শাসন স্থাপন করার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। আজকের দিনে লোকসভা, বিধানসভা থেকে শুরু করে পঞ্চায়েতের মতো স্থানীয় নির্বাচনও প্রচুর ব্যয়বহুল।” আদালতের সাফ কথা, “সংগঠিত অপরাধ, রাজনীতিবিদ এবং আমলাদের মধ্যে একটা অশুভ আঁতাঁত তৈরি হয়েছে। যার জেরে প্রশাসন এবং বিচারব্যবস্থার উপর মানুষ আস্থা হারাচ্ছে।”

মহিলাকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত বিএসপি সাংসদ অতুল কুমার সিংয়ের জামিনের আরজি নাকচ করে এই মন্তব্য করেছে বিচারপতি দীনেশ কুমার সিংয়ের ডিভিশন বেঞ্চ।

25