মন্দির তৈরির ইট জোগাড় করতে ভেঙে দেওয়া হল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘর!

ওয়েবডেস্কঃ

জলপাইগুড়ি শহরের তিস্তার চর স্টেট প্ল্যান প্রাথমিক বিদ্যালয়৷ এই বিদ্যালয়ের কয়েকটি ঘর বেশ কিছুদিন ধরেই ছিল অব্যবহৃত ৷ সেই অব্যবহৃত ক্লাসরুমে প্রথমে ১০ বেডের স্বাস্থ্যকেন্দ্র করা হবে জানানো হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে। কিন্তু, কাজের সময় হচ্ছে একেবারেই অন্য কিছু। সম্প্রতি সেই ঘরটি ভেঙে বের করা হচ্ছে ইট। আর সেই ভাঙা ঘরের ইট ব্যবহার করেই তৈরি হচ্ছে মন্দির !

স্থানীয় বাসিন্দাদের। অভিযোগ, হাসপাতালের কথা শুনে গ্রামের মানুষও আর এ নিয়ে মাথা ঘামাননি ৷ কিন্তু, সরকারি স্কুলের ইট দিয়ে মন্দির তৈরির কাজ শুরু হতেই এ নিয়ে নতুন করে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে ৷

স্কুলের প্রধান শিক্ষক সঞ্জয় সিকদারকে এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “আমাদের স্কুলের অব্যবহৃত ঘরটি কে বা কারা ভেঙে নিয়ে যাচ্ছে ! বিষয়টি জানার পরই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে কোতওয়ালি থানায় আমরা অভিযোগ দায়ের করেছি ৷ তবে কার অনুমতিতে স্কুলের ওই ঘরটি ভাঙা হল, তা আমাদের জানা নেই ৷ আমরা কিছুই জানি না !”

পাশাপাশি, এই স্কুল ভাঙা প্রসঙ্গে জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় সংসদের চেয়ারম্যান লৈক্ষ্যমোহন রায় পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখবে বলে বলেন, “বিনা অনুমতিতে স্কুলের ভবন ভাঙা হচ্ছে ৷ আমাদের কাছে খবর আসার পরই আমরা এই বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করার নির্দেশ দিয়েছি ৷ কারা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন, তা আমরা খোঁজ নিয়ে দেখছি ৷ আমরা কাউকে স্কুলের ভবন ভাঙার অনুমতি দিইনি ৷ এমন ঘটনা যে ঘটছে, সেটা তো আগে জানতামই না ! আমরা নিজেরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সবটা দেখে আসব ৷ এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলব ৷ স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য স্কুলের পরিচালন কমিটিতে রয়েছেন ৷ তাঁর সঙ্গেও কথা বলব ৷”

কিন্তু, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অব্যবহৃত ঘর ভেঙে,কে বা কারা এই কাজ করছেন তা জানা নেই কারো। জবাব মেলেনি পঞ্চায়েতের তরফে।

26