যৎসামান্য খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছেন দেশের ৭১% জনতা , জানালো সমীক্ষা

ওয়েবডেস্কঃ প্রতিদিন যে দেশের খবরের পাতায় পাতায় থাকছে উন্নতির শিখরে পৌঁছে যাবার গল্প,ঠিক সেই দেশেই প্রায় ৭১ শতাংশ মানুষ পাচ্ছেননা যৎসামান্য বেঁচে থাকার জন্য খাবারটুকুও। খোদ প্রধানমন্ত্রী যেখানে গরিবের সেবা এবং কল্যাণকেই অগ্রাধিকার দেওয়ার ঘোষণা করছেন, সেখানে প্রতিদিনের খাবারটুকু জোগাড় করতেই নাভিশ্বাস উঠছে দেশের অধিকাংশ মানুষের। এমনই তথ্য উঠে এলো সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় ।

জানা গেছে, সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট-এর করা ওই সমীক্ষার রিপোর্ট বলছে দেশের ভিত্তি নড়িয়ে দেওয়ার মত কিছু কথা।

যেখানে সারা দেশের মানুষ প্রতিনিয়ত নষ্ট করছে খাবার, রাস্তার ধারে বা প্রতিটি রেস্তোরাঁয় নষ্ট হচ্ছে প্রচুর খাবার, ইউটিউব জুড়ে চলে খাবারের প্রতিযোগিতা ; যেখানে দেখানো হয় কে কার থেকে কত বেশি খেতে পারে এবং সেখানে জমা হতে থাকে লক্ষ্য লক্ষ্য ভিউজ, সেখানেই দৈনন্দিন যতটুকু খাবার প্রয়োজন, সেটুকুও জোগাড় করে উঠতে পারছেন না দেশের প্রায় ৭১ শতাংশ মানুষ।যথাযথ খাবার না পাওয়ার ফলে স্রেফ অখাদ্য কুখাদ্য খেয়ে রোগগ্রস্ত হয়ে পড়েন অনেকেই। আর সেই কারণেই প্রতি বছর মারা যান অন্তত ১৭ লক্ষ মানুষ।

গবেষণায় আরও দেখা যাচ্ছে, বিগত এক বছরের মধ্যে কনজিউমার ফুড প্রাইস ইনডেস্ক অনুযায়ী খাদ্যদ্রব্যের মূল্যস্ফীতি ঘটেছে ৩২৭ শতাংশ। এমনকি গ্রামাঞ্চলের ক্ষেত্রে এই মুদ্রাস্ফীতির হার শহরাঞ্চলের তুলনায় বেশি। দেশের অধিকাংশ মানুষ যা উপার্জন করেন, পরিমিত খাদ্য জোগাড় করার খরচ তার চেয়ে ৬৩ শতাংশ বেশি।

যেখানে রোজকার খাবারটুকু জোগাড় করতেই সাধারণ মানুষকে হিমশিম খেতে হচ্ছে, সেখানে প্রধানমন্ত্রিত্বের অষ্টম বর্ষপূর্তির প্রাক্কালে নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং ঘোষণা করেছেন, “বিগত বছরগুলিতে আমরা দরিদ্রদের সেবা এবং কল্যাণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছি।” তবে এসব কি শুধুই কথার কথা ? উত্তর নেই এই প্রশ্নের।

40