পাঠকের কলমে : অবহেলিতআপ রাধিকাপুর এক্সপ্রেস

দেবব্রত রায়

বেশ কয়েক মাস থেকেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে কলকাতা থেকে রায়গঞ্জগামী 13145 আপ রাধিকাপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি অত্যধিক দেরীতে এসে রায়গঞ্জ পৌঁছুচ্ছে। মালদা পর্যন্ত নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এলেও দেরিটা হচ্ছে তারপর। বিশেষত
সামসি, হরিশ্চন্দ্রপুর, আজমনগর, বারসই স্টেশন গুলোতে ট্রেনটিকে অকারনে দীর্ঘক্ষণ আটকে রেখে অন্য ট্রেন এমনকি পণ্যবাহী ট্রেন পাস করানো হয়।

মনে রাখা প্রয়োজন যে প্রান্তিক অঞ্চলের রাতের একমাত্র ট্রেন হবার কারনে স্থানীয় যাত্রীরা ছাড়াও রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজের অনেক চিকিৎসক, ছাত্র, কর্মী, ইউনিভার্সিটির শিক্ষক, শিক্ষাকর্মী,ছাত্রছাত্রী ছাড়াও প্রশাসনিক স্তরের প্রচুর মানুষ নিত্য যাতায়াত করেন।
প্রতিদিন ট্রেন লেট থাকার কারনে তাঁরা সমস্যায় পড়ছেন।

নিত্যদিনের এই দেরিতে পৌঁছানোটা যদি পূর্ব নির্ধারিতই থাকে কর্তৃপক্ষ তাহলে সেটা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানাচ্ছেন না কেন? অথচ কলকাতাগামী এই ট্রেনটি বেশিরভাগ দিনই নির্ধারিত সময়ের আগেই পৌঁছয়।

সংশ্লিষ্ট রেল কর্তৃপক্ষ সমস্যার গুরুত্ব অনুধাবন করে অতি দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে যে কোন দিন তীব্র যাত্রী বিক্ষোভ ঘটতে পারে।

64