মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণায় আশার আলো ইসলামপুর বাসীদের মনে

রাজ্যে জেলার সংখ্যা বৃদ্ধি হতে পারে। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এমন ইঙ্গিতের পর আশার আলো ইসলামপুরবাসীদের মনে।  উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর মহকুমাকে পৃথক জেলা করার দাবিতে স্থানীয়রা বহুদিন ধরেই সরব। ইসলামপুরের বিধায়ক আব্দুল করিম চৌধুরীও এই দাবিতে একাধিকবার সরব হয়েছেন। বিভিন্ন সংগঠনও দীর্ঘদিন ধরে পৃথক জেলার দাবি তুলেছে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার ডব্লুবিসিএস অফিসার্স অ্যাসসিয়েশনের বার্ষিক সাধারণ সভায় মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যে জেলার সংখ্য বৃদ্ধি করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন। জেলার সংখ্যা ২৩ থেকে বেড়ে ৪৬ ও হতে পারে, এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন। এতে ইসলামপুরের সাধারণ মানুষ ভাবছেন, এবার হয়তো ইসলামপুর জেলার দাবি পূরণ হতে পারে।

 গত বছর ডিসেম্বর মাসে রায়গঞ্জের কর্ণজোড়ার মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক সভায় আব্দুল করিম চৌধুরী ইসলামপুরকে জেলার দাবি জানিয়েছিলেন। সেসময় মুখ্যমন্ত্রী যদিও ইতিবাচক কোনও ইঙ্গিত দেননি। করিম চৌধুরী শুক্রবার বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে ইসলামপুরেকে জেলা করার দাবি জানিয়েছিলাম। এবার মনে হচ্ছে, তিনি জেলার দাবিতে সাড়া দেবেন।

সম্প্রতি ইসলামপুরকে পৃথক জেলার দাবিতে সবর হয় ব্যবসায়ী মহলও। ইসলামপুরের ২৯টি ব্যবসায়ী সংগঠনকে নিয়ে গঠিত ফেডারেশন অব ইসলামপুর ট্রেডার্স অর্গানাইজেশন (ফিটো) এই দাবিতে দিন কয়েক আগে বাস টার্মিনাসে কনভেনশন করে। সেখানে বিভিন্ন স্তরের মানুষ পৃথক জেলার সমর্থনে বক্তব্য রাখেন। কনভেনশন শেষে জেলার দাবি আদায়ে একটি কমিটি গঠন হয়েছে। ওই কমিটি জেলার দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি নেবে বলে সংগঠন সূত্রে জানা গিয়েছে।

বাসিন্দারা বলেন, এক দশক আগে থেকে পৃথক জেলা করার দাবি রয়েছে। উত্তর দিনাজপুর জেলা অনেক বড়। ইসলামপুর মহকুমার চোপড়া, ইসলামপুর, গোয়ালপোখর, চাকুলিয়া সহ বিভিন্ন এলাকার মানুষের জেলা সদরে যোগাযোগ করার দরকার হলে ১০০-১৫০ কিমি দূরে যেতে হয়। এতে সমস্যায় পড়তে হয় এলাকার মানুষদের।

95