তোলার টাকা এবং পারিবারিক বিবাদের জেরে তিনটি শুটআউট রাজ্যে,মৃত ১, জখম ২

বেআইনি অস্ত্র উদ্ধারের নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। পুলিশ মন্ত্রীর নির্দেশে গা ঝাড়া দিয়ে উঠে পুলিশ-প্রশাসন। বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ধার হয় বেআইনী অস্ত্র। কিন্তু গত ২৪ কণ্টার চিত্র থেকে এটা পরিস্কার হয়ে গেল যে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্য পুলিশ কিছুটা তৎপর হয়ে উঠলেও কাজের অগ্রগতি সেভাবে হয়নি।

গত চব্বিশ ঘণ্টায় রাজ্যের তিনটি প্রান্তে ঘটে গেল শুট আউটের ঘটনা। জখম ২ এবং মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির।

বুধবার দুপুরে গুলি চলেছিল উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলায়।ডালখোলায় গুলিবিদ্ধ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ডালখোলা এলাকার এক ভুট্টা ব্যবসায়ী বাজার থেকে ফিরছিলেন। ফেরার সময় পথে তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। মৃত ব্যবসায়ীর নাম জাইদুল শেখ। অভিযোগ, বাড়ি ফেরার পথে জাইদুলের পথ আটকে টাকা চায় দুষ্কৃতীরা। কিন্তু জাইদুলবাবু টাকা দিতে অস্বীকার করায় গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা।

এর পর কোচবিহা্রের শীতলকুচিতে ব্যবসায়ীকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে বুধবার রাতে। এদিন দোকান বন্ধ করার সময় ব্যবসায়ী প্রণয় দেবনাথকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। অভিযোগ, ওই রাতে প্রায় ১১টা নাগাদ তিন দুষ্কৃতী বাইকে চেপে আসে। এর পর মুদিখানা ব্যবসায়ী প্রণয়ের কাছে তোলা চান তারা। কিন্তু টাকা দিতে অস্বীকার করেন প্রণয়বাবু। আর তার জেরে গুলি চালায় অভিযুক্তরা।

এবং সেই রাতেই অন্য একটি শুট আউট হয় পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়গপুর টাউন থানার অন্তর্গত ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে। জানা গেছে, বাংলো সাইড এলাকায় একটি বাড়িতে জানালা ভেঙে ঢুকে গুলি চালানোর অভিযোগ ওঠে প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে। গুলিবিদ্ধ ওই ব্যক্তির নাম সুনীল গুপ্তা।

সুনীল গুপ্তার পরিবারের অভিযোগ, এদিন রাত প্রায় আড়াইটে নাগাদ ছোটু সিং-সহ প্রায় ৪০ জন বাড়ির জানালা ভেঙে সুনীলকে লক্ষ্য করে ৫ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে। আর তার জেরে গুলিবিদ্ধ হন সুনীল। বাইক পড়ে যাওয়া নিয়ে শুরু হয় বিবাদ।

শীতলকুচি এবং খড়গপুর, গুলিবিদ্ধ দুই ব্যক্তি পৃথক দুই হাসপাতালে গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

8