তিলগা বিষ-চা কান্ডে হাসপাতালে ভর্তি ৯ জনকে ছেড়ে দেওয়া হল আজ

ওয়েব ডেস্ক : তিলগা বিষ-চা কান্ডে কালিয়াগঞ্জ স্টেট  জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ৯ জনকে আজ বিপদমুক্ত বলে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হল। গতকাল কালিয়াগঞ্জের তিলগা এলাকায় অনুষ্ঠান বাড়ির চা খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন প্রায় ৩০ জন মানুষ।তড়িঘড়ি তাদের কালিয়াগঞ্জ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।  তাদের ৯ জনকে হাসপাতালে অবজারভেশন এর জন্য রাখা হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। আজ সকালে ভর্তি হওয়া ৯ জন রোগীকে হাসপাতাল ছেড়ে দিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

গতকাল তিলগার  মেহেদী হাসানের মেয়ের  নামকরণ ছিল। সেখানে চা খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন অভ্যাগতরা। ।পাশাপাশি ফেলে দেওয়া চা খেয়ে একটি ছাগল ও গরু অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং পরে ছাগলটি মারা যায়।

আজ ঘটনাটি সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে  মেহেদী হাসানের বাড়িতে হাজির হয়েছিল কুলিক ইনফোলাইন। বাড়ির মালিক মেহেদী হাসানের বাবা  তমিজউদ্দিন আহমেদ জানান যে শিলিগুড়ির একটি চা পাতা কোম্পানির প্যাকেট তারা স্থানীয় একটি দোকান থেকে কেনেন এবং তা দিয়ে চা করার পরেই একটু কটু গন্ধ দেখা দেয়। সেই চারটি ফেলে দেওয়া হয় গরু-ছাগলের চারিতে।পরবর্তীতে ওই পাত্রেই আবার চা করা হয়। এরমধ্যে ওই চা পাতা খেয়ে ওই ফেলে দেওয়া চা পাতা খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে বাড়ির গরু ও ছাগল। ছাগলটি মারাও যায়। এরপর এই আতঙ্ক ছড়ায় অভ্যাগতদের মধ্যে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হয় কালিয়াগঞ্জ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে। তবে কিসের থেকেই বিষক্রিয়া হল বা আদৌ বিষক্রিয়া হলো নাকি  আতঙ্কিত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেন অভ্যাগতরা তা নিয়ে এখনও ধন্দে রয়েছেন স্থানীয়রা। কেউ কেউ কেউ বলছেন ছাগলটি মরে যাওয়ার পরে আতঙ্ক ছড়ায়।   কেউ কেউ বলছেন কৃষিজীবী পরিবারে নানা কীটনাশকের ব্যবহার রয়েছে।চা পাতার সাথে কোন কীটনাশক বিষ মিশে গিয়ে থাকতে পারে।

আজ হাসপাতাল থেকে মুক্তি পাওয়া দুই রোগী মুর্শেদ আলী ও তনুজা বেগমের সাথে কথা বলে জানা যায় যে তারা সুস্থ বোধ করছেন। এদিকে এলাকায় সচেতনতা বাড়াবার জন্য পৌঁছে গিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তরের বিশেষ মেডিক্যাল টিম।

269