বাদ সাধল করোনা : উৎসবের আনন্দে পড়ল ভাটা

ওয়েবডেস্ক: ২৫শে ডিসেম্বর বিশ্বজুড়ে পালিত হয় খ্রীষ্টমাস বা বড়দিন। খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী মানুষেরা বিশ্বাস করেন এদিনেই ঈশ্বর পুত্র যীশু খ্রীষ্টের জন্ম হয়েছিল, তাই যিশুখ্রীস্টের আগমনের দিনটিকে খ্রিস্ট ধর্মের মানুষদের শ্রেষ্ঠ উৎসব হিসেবে পালন করা হয়। আমাদের দেশ সমস্ত রকম ধর্মের মিলনক্ষেত্র তাই প্রতিবছর দেশের প্রতিটি অঙ্গ রাজ্যের পাশাপাশি বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে এই দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়। বছর শেষে এবং নতুন বছরের প্রাকমুহুর্তে বাঙালি মেতে ওঠে বড়দিনের উৎসবের আমেজে। সারা দেশের পাশাপাশি উত্তর দিনাজপুর জেলাবাসীও বড়দিনের উৎসবের আনন্দকে ভাগ করে নিতে একত্রিত হয় রায়গঞ্জের ছোটপারুয়ায় অবস্থিত সাধু যোসেফের মহাগীর্জায়। বড়দিন উপলক্ষে গীর্জা প্রাঙ্গণে মেলা বসে, প্রচুর দর্শনার্থীদের ভিড় দেখা যায় এই দিনে। গির্জার ভেতরে ও বাইরে যিশুখ্রিস্টের জীবনযাত্রার বিভিন্ন ছবি ও প্রতিকৃতির প্রদর্শনী করা হয়। গির্জা প্রাঙ্গণ বিভিন্ন রঙের কাগজ ও তারা দিয়ে সাজানো হয়। খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীরা নাচ, গান ও কেক বিতরণের মাধ্যমে উৎসবের আনন্দ নেয়।

করোণা অতিমারি বিগত বছর থেকে এই আনন্দকে গ্রাস করে নিয়েছে। কুলিক ইনফোলাইন ২৪ডিসেম্বর মধ্যরাতে পৌঁছে গেছিল গির্জার প্রধান পুরোহিত ফাদার সান্থাপানের কাছে। তিনি সকলকে বড়দিনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করে জানিয়েছেন, কোভিড বিধি মেনে গত বছরের ন্যায় এ বছরেও ক্ষুদ্রাকারে বড়দিনের উৎসব পালিত হচ্ছে। দর্শনার্থীদের জন্য গীর্জায় প্রবেশ বা মেলা বন্ধ থাকছে।

384