ডেঙ্গু আক্রান্ত রুগীর শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের থাবা

ওয়েবডেস্কঃ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলাকালীন দিল্লি সহ গোটা দেশ জুড়ে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল। সুগার বা অন্য কোনও কো-মর্ডিবিটি যুক্ত রোগীদের মধ্যে এই ছত্রাক সংক্রমণ দেখা গিয়েছিল। মূলত করোনার দ্রুত চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত স্টেরয়েডের কারণেই এই ছত্রাক সংক্রমণ হচ্ছিল। এমনটাই জানিয়েছিল চিকিৎসকরা। সে সময় দেশজুড়ে প্রায় কয়েক হাজার রোগী ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হওয়ার পরই এই সংক্রমণকে “মহামারি” বলে ঘোষণা করা হয় সরকারী ভাবে।

চিকিৎসকদের তরফে বলা হয়
চোখ ও কানের চারপাশে ব্যথা,লাল হয়ে যাওয়া, হালকা জ্বর, নাক থেকে রক্তপাত, সাইনাসের মারাত্মক যন্ত্রণা, মাথাব্যথা, কাশি, শ্বাসকষ্ট, রক্ত বমিভাব, মানসিক অস্থিরতা ও দৃষ্টিশক্তি হ্রাস হওয়া, চোখে আংশিক ঝাপসা দেখলেই চিকিৎসকদের সঙ্গে পরামর্শ করতে বলা হয়।
এরপর এই শনিবারই দিল্লির ইন্দ্রপ্রস্থ অ্যাপোলো হাসপাতালের তরফে একটি বিবৃতি জারি করে বলা হয়, নতুন করে এক ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগীর খোঁজ মিলেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, মাত্র ১৫ দিন আগেই ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন ওই ব্যক্তি। গ্রেটার নয়ডার বাসিন্দা তালিব মহম্মদ নামক ওই ব্যক্তি সম্প্রতিই ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন।

তার শরীরে মিউকরমাইকোসিস ছত্রাকের উপস্থিতি মিলেছে।কয়েকদিন আগেই তিনি জানান যে, ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পর থেকেই তিনি এক চোখে কিছু দেখতে পারছেন না। গত বছরের শেষভাগ থেকেই সাধারণত করোনা রোগীর দেহে এই ছত্রাক সংক্রমণের দেখা মিললেও ডেঙ্গু থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা কোনও ব্যক্তির শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণ বিরল ঘটনা।

299