Categories
দেশের খবর

নীল Aadhaar কার্ড কী ?কাদের নিতে হবে এই কার্ড , কেনইবা নিতে হবে? কী জানালো UIDAI ?

ওয়েবডেস্কঃ বর্তমান ভারতবর্ষে একজন ভারতীয় নাগরিকের কাছে আধার কার্ড সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নথি। বর্তমানে সবেতেই এই আধার কার্ড প্রয়োজন হয়ে থাকে। যেকোনো ধরনের সরকারি সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে যেমন আধার কার্ড অত্যাবশ্যকীয় নথিতে পরিণত হয়েছে, ঠিক তেমনই আবার বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার ক্ষেত্রেও আধার কার্ড অন্যতম প্রয়োজনীয় নথি হিসাবে গণ্য হচ্ছে। এমনকি বর্তমানে স্কুল কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রেও আধার সংযুক্তিকরণ জরুরী হয়ে পড়েছে।

কার্ডের ১২ সংখ্যার UIDAI নম্বর পরিচয়ের ক্ষেত্রে প্রত্যেক দাপ্তরিক কাজে অত্যাবশ্যক। এছাড়া বাসস্থানের প্রমাণস্বরূপ ব্যবহৃত হয় এই পরিচয়পত্র।

সাদা রঙের যে আধার কার্ড আমরা ব্যবহার করি, তা আমাদের সকলের কাছেই রয়েছে। আমরা সকলেই জানি। তবে এই আধার কার্ডটি ছাড়া আধার কার্ডের আরও একটি ধরণ রয়েছে। এই বিশেষ কার্ডের রঙ নীল।

সাদা আধার কার্ডটি প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ব্যবহার হয়। আর নীল আধার কার্ডটি শিশুদের জন্য। একে বলে ‘বাল আধার কার্ড’। ২০১৮ সালে ৫ বছর পর্যন্ত শিশুদের জন্য এই আধার কার্ডের ব্যবহার প্রথম শুরু হয়।

সাধারণ আধার কার্ডের ক্ষেত্রে বায়োমেট্রিক বা আইরিশ স্ক্যানের তথ্য থাকে। কিন্তু নীল আধারের ক্ষেত্রে তা থাকে না। বাল আধার কার্ডের জন্য আবেদন করতে শুধুমাত্র বার্থ সার্টিফিকেট, বাবা মায়ের যে কারও আধার কার্ডের প্রয়োজন হয়।

বাল আধার কার্ড আবেদনের প্রক্রিয়া-

১. সবার আগে আধার এনরোলমেন্ট সেন্টারে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে এনরোলমেন্ট ফর্ম ফিল আপ করতে হবে।

২. শিশুর জন্ম সার্টিফিকেটের সঙ্গে বাবা- মা’য়ের আধার কার্ড নম্বর ও মোবাইল নম্বর দিতে হবে।

৩. শিশুর একটি ছবি তোলা হবে সেন্টারেই।

৪. শিশুর আধার কার্ড নম্বরের সঙ্গে বাবা- মা’য়ের আধার কার্ড নম্বরকে লিঙ্ক করানো হয়।

৫. সব কাজ হলে একটি অ্যাকনলেজমেন্ট স্লিপ দেওয়া হবে সেন্টার থেকে।

৬. সব শেষে রেজিস্ট্রেশন ও ভেরিভিকেশন সম্পূর্ণ হলে একটি মেসেজ আসবে রেজিস্টার্ড নম্বরে।

৭. সবকিছু ঠিক থাকলে আবেদনের ৬০ দিন পর বাল আধার পেয়ে যাবেন।

এই কার্ডের মেয়াদ শেষ হলে , একটি বায়োমেট্রিক করিয়ে নিতে হবে।যার জন্য আবেদন করতে পারেন অনলাইনেই।

54

Leave a Reply