তবে কি এবার দল ছাড়ার পথে লকেট!

ওয়েবডেস্কঃ দিন কয়েক আগেই আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় যোগদান করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসে। এরপর জল্পনার শীর্ষে রয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। এই প্রসঙ্গে মঙ্গলবার দিল্লিতে তাঁর বাসভবনে লকেটের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা।

যদিও ,নাড্ডার সঙ্গে তাঁর দল ছাড়ার প্রসঙ্গে কোনও আলোচনা হয়নি বলেই দাবি করেছেন লকেট। তিনি বলেছেন , “আমি কেন বিজেপি ছাড়তে যাব? আগামী বছর উত্তরাখণ্ড বিধানসভা নির্বাচনে সহ-পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব দিয়েছে। বাংলা থেকে প্রথমবার কোনও মহিলাকে এই ধরনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। আমার সামনে এখন জাতীয় রাজনীতিতে কাজ করার সুযোগ। তা ছেড়ে আমি রাজ্য রাজনীতিতে নিজেকে কেন সীমাবদ্ধ করব। তার কোনও কারণ তো দেখতে পাচ্ছি না।”

লকেট আরও বলেন , “আমাকে উত্তরাখণ্ডের বিধানসভা নির্বাচনে সহ-পর্যবেক্ষক করা হয়েছে। সেখানে দু’দিন সফর করে সোমবার সকালেই আমি দিল্লি ফিরেছি। নাড্ডাজি ডেকে পাঠিয়েছিলেন উত্তরাখণ্ড নিয়ে আলোচনার জন্য। জাতীয় রাজনীতিতে যে সুযোগ আমাকে দেওয়া হয়েছে সেই দায়িত্ব যাতে ভালেভাবে পালন করতে পারি, সেই বিষয়েই তিনি এদিন পরামর্শ দিয়েছেন।বুধবার যোশীজির সঙ্গে আবার আমাদের উত্তরাখণ্ড নিয়ে বৈঠক রয়েছে। সেই সব বিষয়েই কথা হয়েছে। “

তবে ,লকেট স্বীকার না করলেও নাড্ডা যে শুধু উত্তরাখণ্ড নিয়ে আলোচনার জন্য লকেটকে ডেকেছিলেন, সে কথা মানতে নারাজ ওয়াকিবহাল মহল। কারণ, বিজেপির তরফে উত্তরাখণ্ডের নির্বাচনে পর্যবেক্ষক করা হয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশীকে। পর্যবেক্ষককে ছাড়াই সর্বভারতীয় সভাপতি সে রাজ্য নিয়ে শুধুমাত্র সহ-পর্যবেক্ষকের সঙ্গে বৈঠক করেছেন, এমনটা বিজেপিতে দেখা যায় না। লকেটের সঙ্গে এদিন নাড্ডা যে বাংলার বিষয়েই আলোচনা করেছেন তার ইঙ্গিত লকেটের কথাতেই মিলেছে।

“নতুন রাজ্য সভাপতির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আমাদের সবাইকে কাজ করতে হবে বলেই নাড্ডাজিকে জানিয়েছি।” তাঁর সমস্ত কথা নাড্ডাজি মন দিয়ে শুনেছেন বলেও মন্তব্য করেছেন হুগলির সাংসদ।

315