Categories
রাজ্য

বাড়ছে আতঙ্ক ! অজানা জ্বরে আবারো ২ শিশু মৃত্যুর ঘটনা মালদায়!

ওয়েবডেস্কঃ অজনা জ্বরে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারালো ৬ মাসের শিশু। এনিয়ে গত চারদিনে মোট ৭ জন শিশুর মৃত্যু হয়েছে মালদায়। চিকিৎসাধীন প্রায় দেড় শতাধিক শিশু। এবং চার জেলায় মোট ১৩ শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

উত্তরবঙ্গে বেড়েই চলেছে শিশুদের জ্বরের মাত্রা । কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ারের জেলা হাসপাতালগুলিতে চালু করা হয়েছে ইনটেনসিভ ফিভার কেয়ার ইউনিট। প্রতিদিন যে হারে শিশুদের জ্বরে আক্রান্তের ঘটনা ঘটছে তাতে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের একাংশ।

শিশুদের জ্বর মোকাবিলার ইতিমধ্যেই গঠিত হয়েছে পাঁচ বিশেষজ্ঞ নিয়ে একটি কমিটি । কমিটির প্রতিনিধিরা শিলিগুড়িতে পৌঁছনোর পর উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল ঘুরেও দেখেন। বর্তমান জ্বরের পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করেন উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতালের আধিকারিকদের সঙ্গে।

উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজের ভিআরডি ল্যাবে জ্বরে আক্রান্ত ১০ শিশুর লালার নমুনায় কোনও সংক্রমণ ধরা পড়েনি। ফলে সেই সব শিশুদের লালার নমুনা পাঠানো হয়েছিল কলকাতা স্কুল অফ ট্রপিক্যাল মেডিসিনে। সেখান থেকে জানা গিয়েছে যে, ১০ শিশুর শরীরে রয়েছে রেসপিরেটরি সিসিসিয়াল ভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জা-বি।

যদিও , উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজির বিভাগীয় প্রধান ডাঃ অরুণাভ সরকার বলেন, ‘এই ধরনের ভাইরাস নতুন কোওন ভাইরাস নয়। প্রতি বছরই জ্বর সর্দি-কাশি হলে এই ধরনের ভাইরাস মেলে রোগীর শরীরে। শুধু শিশুরাই নয়, বড়রাও এই ভাইরাসে আক্রান্ত হন। এতে আতঙ্কের কিছু নেই। শুধু সচেতন থাকতে হবে, আর শিশুদের জ্বর সর্দি-কাশি হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।’

উত্তরবঙ্গ থেকে ৫৪টি মোট নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। যার মধ্যে তিনজন ডেঙ্গু, ১৩ জন ম্যালেরিয়া, তিনজন স্ক্রাব টাইফাস ও তিনজন জাপানি এনসেফালাইটিসে আক্রান্ত হয়েছে। পাশাপাশি মালদহে জ্বর নিয়ে হাসপাতালের শিশু বিভাগে ১৫০-জনের বেশি শিশু ভর্তি রয়েছে। শুধু শিশু বিভাগেই নয়, জ্বর এবং সর্দি-কাশির উপসর্গ নিয়ে বহু শিশুকে তাদের পরিবারের লোকেরা আউটডোরে দেখাতে আসছেন।

বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান চিকিৎসক রাজা রায় বলেন , ‘জ্বর নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। প্রতি বছরই এই সময়ে এ ধরনের জ্বর হয়। শিশুরা জ্বরে আক্রান্ত হলে সময়মতো চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে হবে।’

80

Leave a Reply