Categories
করোনা

কোভিশিল্ড-কোভ্যাক্সিনের ককটেল! গবেষণায় সবুজ সংকেত DCGI-এর।

ওয়েবডেস্কঃ কিছুদিন আগেই ICMR এবং ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ভাইরোলজির তরফে একটি গবেষণায় চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট উঠে এসেছিল। দেখা গিয়েছিল, এককভাবে ভ্যাকসিনের দুটি ডোজের তুলনায় কোভিশিল্ড ও কোভ্যাক্সিনের মিশ্রণই বেশি কার্যকরী। সকলের মধ্যেই প্রশ্ন ছিল প্রথম ডোজ কোভ্যাক্সিন নিলে পরের ডোজে কোভিশিল্ড নেওয়া যাবে? সেই গবেষণায় এবার সবুজ সংকেত দিল ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া।

DCGI-এর অনুমোদন পাওয়ায় এই গবেষণা আরও একধাপ এগিয়ে গেল বলেই মনে করছে চিকিৎসক মহল। সে ক্ষেত্রে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে বলেও মনে করা হচ্ছে। আগেই জানানো হয়েছিল ভেলোরের খ্রিস্টান মেডিক্যাল কলেজে এই মিশ্রণের ট্রায়াল চলবে।

প্রসঙ্গত, উত্তরপ্রদেশে ভুলবশত কয়েকজনের শরীরে দু’টি ডোজে দু’টি পৃথক ভ্যাকসিন দেওয়া হয়। কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ডের মিশ্রণের ফলে তাঁদের শরীরে করোনা প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। ICMR-এর গবেষণা রিপোর্টে বলা হয়েছে, এইসব ব্যক্তিদের ইমিউনিটি কেবলমাত্র কোভ্যাক্সিন কিংবা কোভিশিল্ড নেওয়া ব্যক্তিদের থেকে অনেকটাই বেশি। ভারতে যখন বিভিন্ন ডোজের টিকার আকাল দেখা যাচ্ছে, তখন ICMR-এর এই গবেষণা সমস্যার সমাধান করবে বলেই অনুমান করা হচ্ছে। ভ্যাকসিন নিয়ে একাধিক জটিলতা ও দ্বিধা কাটবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ICMR-এর তরফে জানানো হয়েছে, করোনাভাইরাসের ডেল্টা ও ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়্যান্টের বিরুদ্ধে কোভিশিল্ড এবং কোভ্যাক্সিন দু’টি টিকাই কাজ করে। কিন্তু ডেল্টার বিরুদ্ধে বেশি কার্যকরী সেরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড টিকা। এক্ষেত্রে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হয়ে ওঠার পর যদি কোভিশিল্ড টিকার দু’টি ডোজ গ্রহণ করেন সেক্ষেত্রে তা ডেল্টার বিরুদ্ধে অনেক বেশি কাজ করে বলে জানা গিয়েছে গবেষণায়।

76

Leave a Reply