Categories
দেশ

‘অমিত শাহের নির্দেশেই হামলা, আমরা জিতবই’ ত্রিপুরা নিয়ে এবার আসরে স্বয়ং মমতা

ওয়েবডেস্কঃ

ত্রিপুরা কাণ্ডে এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিশানায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বাংলা জয়ের পর ত্রিপুরাকে পাখির চোখ করেছে তৃণমূল। তবে, এর আগে পর্যন্ত ত্রিপুরা নিয়ে তেমন মুখ খোলেননি তৃণমূল নেত্রী। তবে, ত্রিপুরায় তৃণমূল যুব নেতা দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহাদের আক্রান্ত হওয়া ও গ্রেফতারির ঘটনা নিয়ে এবার সরাসরি আসরে নামলেন মমতা। এদিন এসএসকেএম-এ সুদীপ রাহা, জয়া দত্তদের দেখতে গিয়ে মমতা বুঝিয়ে দিলেন, ত্রিপুরাই এবার তাঁর পাখির চোখ।

শনি ও রবিবার দিনভর ত্রস্ত ত্রিপুরায় আক্রান্ত হয়েছেন তৃণমূলের যুব নেতারা। তাঁরা আক্রান্ত তো হয়েইছিলেন, সেইসঙ্গে গ্রেফতারও করা হয় তাঁকে। এরপরই ত্রিপুরায় ছুটে যান তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে, দিনভর থানা আদালত করে দেবাংশু ভট্টাচার্য, জয়া দত্ত, সুদীপ রাহাদের মুক্ত করেই ত্রিপুরা ছাড়েন অভিষেক। সঙ্গে নিয়ে আসেন জয়া, সুদীপদের। এরপরই তাঁদের ভর্তি করা হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। সেখানেই এদিন যুব নেতাদের দেখতে যান মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই তিনি বিজেপিকে আক্রমণ শানিয়ে বলেন, ‘ত্রিপুরা আমাদের লোকেদের উপর নির্লজ্জ হামলা চালিয়েছে বিজেপি। সেখানে দানবীয় সরকার চালাচ্ছে বিজেপি। আমাদের কর্মীদের মারধর করে গ্রেফতার করেছে। পুলিশের সামনেই সব হয়েছে। সারাদিনে আমাদের কাউকে এক গ্লাস জল পর্যন্ত দেওয়া হয়নি।’

এখানেই থামেননি মমতা। তিনি বলেন, ‘যেভাবে আক্রমণ হয়েছে, তাও আবার পুলিশের সামনে। ৩৬ ঘণ্টা কোনও চিকিৎসা করেনি, জলও দেয়নি। এটা সম্পূর্ণ হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশে, নাহলে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর এত সাহস হতে পারে না।’ এদিন এসএসকেএম-এ সুদীপ, জয়াকে দেখার পাশাপাশি দেবাংশুকেও ফোন করেন তৃণমূল নেত্রী। তাঁর কাজের প্রশংসাও করেন।

এদিকে, ত্রিপুরায় তৃণমূল নেতাদের উপর হামলা, গ্রেফতারির প্রতিবাদে এদিন সংসদে প্রতিবাদে সামিল হন তৃণমূল সাংসদরা। সেখানেই স্লোগান ওঠে, ‘দেশের নেত্রী কে, মমতা ব্যানার্জী আবার কে’, আবার উল্টো স্লোগান, ‘দেশের গুণ্ডা কে, নরেন্দ্র মোদি আবার কে?’ তবে, শুধু গান্ধিমূর্তির পাদদেশেই নয়, সংসদের ভিতরেও এ নিয়ে তৃণমূল সরব হবেন বলেই জানা গিয়েছে।

43

Leave a Reply