Categories
প্রথম পাতা রাজ্য

পরপর ৩ বার করোনা সংক্রমণ : শেষে মৃত্যু

ওয়েব ডেস্ক জুলাই ৩১,২০২১: পর পর তিন মাসে তিনবার সংক্রমণের পর মারাই গেলেন করোনা আক্রান্ত। এই ঘটনা ঘিরে তুমুল আলোড়ন চিকিৎসক মহলে। এই অল্প সময়ের মধ্যেও কী ভাবে শরীরে একাধিকবার সংক্রমণ দানা বাঁধল তা নিয়েই প্রশ্ন হচ্ছে বিশেষজ্ঞ মহলে

আজ সন্ধ্যে সাড়ে সাতটায় প্রশ্ন করুন সরাসরি

২৮ বছরের ডালিয়া বিবি। গত মে মাসে অসুস্থ হয়েছিলেন। হাসপাতালে ভর্তি হন করোনা পজিটিভ হয়ে। ২৯ মে রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ থেকে ছাড়া পান তিনি। ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন জুন মাসে। আবার কোভিড পরীক্ষা করা হলে ১১ জুন আরটিপিসিআর রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এনআরএস হাসপাতালে ভর্তিও করা হয়। সেখান থেকেও করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফেরেন ডালিয়া।

জুলাই মাসে ফের অসুস্থ হয়ে, পড়েন তিনি। আবারও সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এই ধাক্কা সামলাতে পারেননি তিনি। মৃত্যু হয় তাঁর। তিন মাসে ডালিয়া বিবির কোভিড রিপোর্ট কখনও পজিটিভ, কখনও নেগেটিভ। যা অত্যন্ত বিরল বলেই মানছেন চিকিৎসকরা। ডালিয়া বিবির ভাইয়ের কথায়, “আমরা ডাক্তারের কাছে গেলে তিনিও হতবাক হয়ে যান। উনি বলেন, এই করোনাকালে আমি এমন ঘটনা দেখিনি।”

ইতিমধ্যেই এই ঘটনা নিয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে। তবে হালে প্রায় একই রকম ঘটনা ঘটে মুম্বইয়ে। তিনবার করোনা আক্রান্ত হন মুম্বইয়ের এক চিকিৎসক। ১৩ মাসের মধ্যে তিনবার করোনার কবলে পড়েন ২৬ বছরের ওই তরুণী। টিকার দু’টি ডোজ় নেওয়ার পরও সংক্রমণ হয় তাঁর। জিনোম সিক্যোয়েন্সিংয়ের জন্য তরুণীর দেহ থেকে নমুনাও সংগ্রহ করে বিএমসি। মুম্বইয়ের চিকিৎসকের সঙ্গে ডালিয়া বিবির ঘটনার ফারাক থাকলেও অল্প সময়ে বার বার সংক্রমণ কাছাকাছি এনে দিয়েছে দু’টি ঘটনাকে।

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যাপক প্রসূন ভট্টাচার্য বলেন, “এ ক্ষেত্রে হয়তো ভাইরাসটা প্রথমে ছিল, কিছুদিন তার ক্ষমতা কমে যাওয়ায় রোগী নেগেটিভ হয়ে যান। কিন্তু ভাইরাসটা থেকে গিয়েছিল। রোগীর প্রতিরোধ ক্ষমতার দুর্বলতাও কোথাও এর কারণ হতে পারে। তবে এটা বিরল ঘটনা।”

131

Leave a Reply