Categories
অন্য খবর

গুরুগ্রাম স্থাপন করা হলো ভারতের প্রথম ‘গ্রেইন এটিএম’

ওয়েবডেস্কঃ গুরুগ্রামের গ্রাহকদের আর দীর্ঘ কাতারে দাঁড়াতে হবে না, বা দোকানদার কম রেশন দেওয়ার বিষয়ে চিন্তা করতে হবে না, কারণ পাইলট প্রকল্প হিসাবে ভারতের প্রথম ‘শস্য এটিএম’ জেলায় জেলায় স্থাপন করা হয়েছে।

হরিয়ানার উপ-মুখ্যমন্ত্রী, দুশায়ন্ত চৌতলা, যিনি খাদ্য ও নাগরিক সরবরাহ বিভাগের পোর্টফোলিওও রাখেন, শস্যের এটিএম স্থাপনের মাধ্যমে, রেশন পরিমাণের অপেক্ষার সময় এবং সঠিক পরিমাপ সম্পর্কিত সমস্ত অভিযোগের প্রতিকার করা হবে। “এই মেশিনটি ইনস্টল করার উদ্দেশ্য হ’ল ন্যূনতম ঝামেলা সহ সঠিক পরিমাণটি সঠিক উপকারকারীর কাছে পৌঁছানো উচিত তা নিশ্চিত করা।”

গুরুগ্রামের ফররুখনগরে পাইলট প্রকল্পের সফল সমাপ্তির পরে, হরিয়ানা সরকার রাজ্য জুড়ে তার ডিপোগুলিতে এই মেশিনগুলি স্থাপন করার পরিকল্পনা করে চৈতলা বলেন, এটি কেবল গ্রাহকদেরই উপকার করবে না, তবে সরকারি ডিপোগুলিতে খাদ্যশস্যের ঘাটতি নিয়ে ঝামেলাও শেষ করবে এবং পাবলিক বিতরণ ব্যবস্থায় আরও স্বচ্ছতা আনবে। তদুপরি, শস্যের এটিএমএস সরকারী ডিপো অপারেটরগুলিকে খাদ্য বিতরণে সহায়ক হিসাবে প্রমাণিত করবে এবং তাদের সময় সাশ্রয় করবে বলেও জানান তিনি ।

এটি একটি স্বয়ংক্রিয় মেশিন যা ব্যাঙ্ক এটিএমের মতো কাজ করে। জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের আওতায় প্রতিষ্ঠিত এটিকে অটোমেটেড, মাল্টি কমোডিটি, শস্য বিতরণ মেশিন বলা হয়। এটি একবারে পাঁচ থেকে সাত মিনিটের মধ্যে ৭০ কেজি শস্য বিতরণ করতে পারে। এই কর্মসূচির সাথে যুক্ত কর্মকর্তা অঙ্কিত সুদ বলেন যে শস্য পরিমাপে ত্রুটি নগন্য।

এই স্বয়ংক্রিয় মেশিনটি টাচ স্ক্রিন সহ বায়োমেট্রিক সিস্টেমে সজ্জিত, যেখানে সুবিধাভোগীকে আধার কার্ড বা রেশন কার্ড নম্বরটি প্রবেশ করতে হবে। বায়োমেট্রিক অনুমোদনে, সরকার কর্তৃক সুবিধাভোগীদের জন্য নির্ধারিত খাদ্যশস্যগুলি স্বয়ংক্রিয়ভাবে মেশিনের নীচে রাখা ব্যাগগুলিতে পূরণ করা হবে। এই মেশিনের মাধ্যমে তিন ধরণের খাদ্যশস্য – গম, চাল এবং বাজরা বিতরণ করা যায়। বর্তমানে ফররুখনগরে (গুরুগ্রাম) ইনস্টলড গ্রেনের এটিএম মেশিন থেকে গমের বিতরণ শুরু হয়েছে।

34

Leave a Reply