Categories
অন্য খবর

৫ মিনিটের ‘মক ড্রিল’ কেড়ে নিলো ২২ তাজা প্রাণ

ওয়েবডেস্কঃ অক্সিজেনের ঘাটতি রাজ্যজুড়ে। হাসপাতালও তাই ঠিক করে নিলো তার প্রায়োরিটি। আর তারই জেরে একসাথে প্রাণ হারালো ২২ জন কোভিড আক্রান্ত। ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের আগ্রার এক হাসপাতালের। জানা গেছে, ‘মক ড্রিল’-এর জন্য সেখানে পাঁচ মিনিট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল অক্সিজেনের জোগান। আর তারই জেরেই ঘটে গেল মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। আগ্রার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হল কমপক্ষে ২২ জন রোগীর।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। যেখানে এক ব্যক্তি নিজেকে হাসপাতালের মালিক পরিচয় দিয়ে জানান, ‘মক ড্রিলের’ অংশ হিসেবে গত ২৬ এপ্রিল হাসপাতালে পাঁচ মিনিটের জন্য অক্সিজেনের জোগান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। তাই সেদিন মারা যান ২২ জন রোগী। আর ভিডিওটি ভাইরাল হতেই চাঞ্চল্য শুরু হয় সর্বত্র।প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যোগীর রাজ্যের বেহাল স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে। তবে ঘটনাটির কথা জানতে পেরেই নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। ওই ভিডিওর প্রেক্ষিতে তদন্তের নির্দেশও দিয়েছেন আগ্রার জেলাশাসক।সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ওই ভিডিওটি সঠিক কিনা তা এখনো জানা যায়নি। কিন্তু ওই ভিডিওটিতে এক ব্যক্তিকে কথা বলতে দেখা যাচ্ছে। সেখানে তিনি নিজেকে আগ্রার পরশ হাসপাতালের মালিক ‘আরিঞ্জয় জৈন’ বলে দাবি করেন। সেখানে তাঁকে বলতে শোনা যায়, আমাদের জানানো হয়েছিল রাজ্যে অক্সিজেনের ঘাটতি রয়েছে। খোদ মুখ্যমন্ত্রীও অক্সিজেন জোগাড় করতে পারবেন না। মোদি নগর পুরো শুকিয়ে গিয়েছিল। হাসপাতালে সেসময় অক্সিজেনের অভাব ছিল। আমরা রোগীর পরিবারের লোকজনদের বুঝিয়ে রোগীদের অন্যত্র পাঠানোর চেষ্টা করি। কিন্তু কেউ কেউ রাজি হলেও, অনেকেই গররাজি হয়। এরপরই আমরা মক ড্রিলের পরিকল্পনা করি। তাতেই বোঝা যাবে কে বাঁচবেন আর কে মারা যাবেন। শেষে কাউকে না জানিয়েই সকাল সাতটায় পাঁচ মিনিটের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয় অক্সিজেন সাপ্লাই। তখনই আমরা ২২ জন রোগীকে চিহ্নিত করি। বুঝতে পারি তাঁরা অচিরেই মারা যাবেন। কিছুক্ষণ পরই ওই ২২ জনের শরীর নীল হতে শুরু করে। ঘটনাচক্রে কিছুক্ষন পরেই ওই ২২ জন রোগীর মৃত্যু হয়।”

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী সহ বিরোধীরা বিজেপি তথা উত্তরপ্রদেশ সরকারের সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। প্রত্যেকেই দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেছেন। প্রশাসনের তরফে যদিও এখনো সরকারী কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি।

68

Leave a Reply