Categories
প্রথম পাতা

বিনামূল্যে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হবে খাবার! কোভিড আক্রান্ত পরিবারের পাশে দাঁড়াতে প্রশংসনীয় উদ্যোগ রায়গঞ্জের ব্যাবসায়ীর!

ওয়েবডেস্কঃ সারাদেশের পাশাপাশি আমাদের জেলাতেও কোভিড ১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে। অসংখ্য পরিবার করোনা আক্রান্ত হয়ে রিতিমত সংকটে রয়েছে। অনেক পরিবার আছে যেখানে বাড়ির সবাই আক্রান্ত। বাড়িতে বাজার করার বা রান্না করার কেউ নেই। কেউ কেউ আত্মীয় স্বজন বা প্রতিবেশীদের সাহায্য পাচ্ছেন। কিন্তু সবার কপালে তা জুটছে না ফলে তারা গভীর সংকটে রয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে রায়গঞ্জের একটি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান রাধেশ্যাম স্টোর্সের পক্ষে একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ওমপ্রকাশ আগরওয়াল ও বিনয় আগরওয়াল হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে এই বার্তাটি ছড়িয়েছেন।

হোয়াটসঅ্যাপে প্রচারিত বার্তায় বলা হয়েছে যে রায়গঞ্জের কোভিড আক্রান্ত যে কোনো পরিবার যদি চায় তবে তাদের দেওয়া হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে মেসেজ করে কত জনের খাবার চাই জানায় তবে তাদের পক্ষ থেকে নিরামিষ লাঞ্চ প্যাকেট ঐ পরিবারের দরজায় পৌঁছে দেওয়া হবে। তবে সেই পরিবারে কেউ কোভিড আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ হিসেবে rtpcr বা rapid test অথবা সিটি scan report হোয়াটসঅ্যাপে পাঠাতে হবে।

হঠাৎ এইরকম উদ্যোগ নেওয়ার ইচ্ছে হলো কেন? এই প্রশ্নের উত্তরে রাধেশ্যাম স্টোর্সের পক্ষে শ্রী বিনয় আগরওয়াল জানিয়েছেন যে, “আমাদের পরিচিত – পরিজন বিভিন্ন পরিবার যারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে আছে তাদের অভিজ্ঞতা থেকে আমরা বুঝতে পারছি যে কোভিড আক্রান্ত পরিবার গুলোকে রোগের পাশাপাশি এই ধরনের সমস্যাকেও মোকাবিলা করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই আমরা আমাদের প্রিয় শহরবাসীর বিপদের সময় যদি তাদের পাশে একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে পারি তো আমাদের খুব ভালো লাগবে। “

রায়গঞ্জ সাপোর্ট কোভিড কমিউনিটির অন্যতম আহ্বায়ক অরুপ ঘোষ জানিয়েছেন আমরা গত বছর কোভিড ১৯ এর প্রথম ঢেউয়ের সময় থেকেই কোভিড আক্রান্ত পরিবার গুলোর পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে চলেছি। আমাদের এই কমিউনিটির চিকিৎসকরা নিয়মিত ফোনে কোভিড আক্রান্ত যারা বাড়িতে থেকে চিকিৎসা করাচ্ছেন তাদের চিকিৎসা পরামর্শ দিচ্ছেন। আমাদের বাকি সদস্যরা ওষুধ পৌঁছে দেওয়া থেকে বাজার পৌঁছে দেওয়ার কাজ করছেন। অন্য আরো স্বেচ্ছাসেবীরাও তাদের সাধ্যমত চেষ্টা করছেন। এবার রাধেশ্যাম স্টোর্সের এই উদ্যোগে যারা হোম কোয়ারান্টাইনে রয়েছেন তাঁরা আরও অনেক বেশি উপকার পাবেন। এইভাবে সবাই এগিয়ে আসলে কাজটা অনেক সহজ হয়ে যায়।

ওয়েস্ট দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সাধারণ সম্পাদক শংকর কুন্ডু এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘ যে বিগত বছরে লকডাউনের সময় অভুক্ত মানুষের মুখে অন্য জোঁটাতে রায়গঞ্জের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, রাজনৈতিক দল, রায়গঞ্জের ছাত্র – যুবক অনেকেই ঝাঁপিয়ে ছিল। এবছর করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে যে ভাবে দ্রুত রোগ ছড়িয়ে পরছে তাতে মানুষ নিজেকে রোগের হাত থেকে বাঁচাতেই ব্যাতিব্যস্ত হয়ে পরেছে। এই সময় দাঁড়িয়ে রাধেশ্যাম স্টোর্সের এই উদ্যোগ ভিষণ প্রশংসনীয় ও মহৎ কাজ বলে আমি মনে করি। ‘

143

Leave a Reply