১৯/৩/২০২১,

ওয়েবডেস্কঃ স্বামীর প্রার্থীপদ বাতিলের দাবিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হলেন উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের বিজেপি প্রার্থী সোমেন রায়ের স্ত্রী শর্বরী সিংহরায়। তাঁর অভিযোগ, একাধিক মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে সোমেনের। চাকরি দেওয়ার নামে একাধিক মানুষের থেকে টাকা হাতিয়েছেন তাঁর স্বামী, এমন অভিযোগ করেছেন স্ত্রী শর্বরী। 

দিন কয়েক আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও পোস্ট করেন প্রাথমিক শিক্ষিকা শর্বরী সিংহরায়। সেই ভিডিওতে জানান যে ফালাকাটা থেকে তাঁর স্বামীকে প্রার্থী করা হতে পারে। তাই আবেদন করেন কোনওভাবেই সোমেনকে যেন প্রার্থী করা না হয়। কারণ হিসেবে বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি। জানান, ২০০৮ সালে সোমেনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন শর্বরী। বিয়ের পর থেকেই অত্যাচার শুরু হয় তাঁর উপর। ২০১১ সালে কন্যাসন্তান হয় ওই দম্পতির। অভিযোগ, এরপর স্বামীর সঙ্গে একাধিক মহিলার সম্পর্কের কথা জানতে পারেন শর্বরীদেবী। প্রতিবাদ করলেই জুটত মার। বাপের বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দিতেন সোমেন। শর্বরী দেবীর কথায়, “চাকরি সূত্রে আমি বাইরে থাকায় কয়েকবছরে সহকর্মী থেকে শুরু করে বহু মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করে। প্রতিবাদ করলে বলত, আমি রাজনৈতিক পরিবারের, আমি জানি কীভাবে খুন করে শাস্তি এড়াতে হয়।”

শর্বরীদেবী আরও বলেন, বহুদিন চাকরি দেওয়ার নামে টাকা তুলত সোমেন। প্রতিবাদ করায় অত্যাচার বাড়ে। পরবর্তীতে চাকরি না পেয়ে সকলে চাপ সৃষ্টি করতেই তুফানগঞ্জ ছেড়ে ফালাকাটায় থাকতে শুরু করেন সোমেন। সেই সময় ফালাকাটায় বন্ধুর মামির সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয় তাঁর। পরবর্তীতে বিয়েও করেন তাঁরা। ওই ভিডিওতে শর্বরী সকলের কাছে আবেদন করেছিলেন যাতে কোনওভাবেই সোমেনকে প্রার্থী  করা না হয়। যদিও বিজেপির প্রার্থীতালিকা প্রকাশিত হলে জানা যায়, ফালাকাটা নয় কালিয়াগঞ্জ থেকে প্রার্থী করা হয়েছে সোমেনকে। এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল শর্বরীর ভিডিও।নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন সোমেন। এবিষয়ে সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, “ওই ভিডিওটি প্রায় ৬ বছরের পুরনো।” যদিও সাংসদের এই দাবি মানতে নারাজ ওয়াকিবহল মহল। 

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সৌমেন রায়ের পাশাপাশি কামারহাটির বিজেপি প্রার্থী রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধেও সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতর্কিত মন্তব্য দেখা যায়। সেখানে লেখা, ‘বাঁকুড়া জেলার নেত্রী রুমেলা চক্রবর্তী, রাজু লম্পট এনাকেই পদ দেওয়ার অছিলায় হোটেলে ডেকেছিল। তারপর পার্টির মহিলারা জুতোপেটা করে তাড়িয়েছে, এখন কামারহাটিতে বিধায়ক হতে এসেছে। কামারহাটির মহিলারা জুতোপেটা করে এখান থেকেও তাড়াবে।’

93