ওয়েবডেস্কঃ শেষমেশ ফাঁসিয়েছে রাখি বাঁধা ভাই? নির্বাচনের আগে দেশের স্বরাস্ট্রমন্ত্রী রাজ্যে উপস্থিত থাকালাকীন কোকেন সহ ধরা পড়েছিলেন বিজেপি নেত্রী পামেলা দাসগুপ্ত। সেই নিয়ে মুখ খুলেছেন বিজেপির নেতা দিলীপ ঘোষও। সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, “যদি পামেলা গোস্বামী সত্যিই দোষী হন তাহলে আইন আইনের পথে চলবে। কিন্তু যদি প্রমাণ হয় তাকে চক্রান্ত করে ফাঁসানো হচ্ছে তাহলে আন্দোলনে নামবে ভারতীয় জনতা পার্টি শিবির।” এবার সেই চক্রান্তের বিষয়ে মুখ খুললেন পামেলা স্বয়ং। আর অভিযগের আঙুল তুললেন, বিজেপিরই আরেক নেতার নামে। সোজা নাম নিয়ে কৈলাশ ঘনিষ্ঠ রাকেশই যে ফাঁসিয়েছেন তাঁকে সে কথা জানিয়েছেন।

গতকাল ১০০ গ্রাম কোকেন সহ নিউ আলিপুর থেকে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন হুগলীর বিজেপি যুব মোর্চার পর্যবেক্ষক অভিনেত্রী পামেলা গোস্বামী। দীর্ঘদিন ধরেই পামেলার ওপর বেআইনি মাদক চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ ছিলই। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছিলেন অনেক দিন ধরেই। সেই মতোই কাল নিউ আলিপুরের এনআর অ্যাভিনিউ দিয়ে যাওয়ার সময়ে পামেলার গাড়ি ধাওয়া করে পুলিশ। সূত্রে খবর নিউ আলিপুরে নিজের আবাসনের কাছে গাড়ি পার্কিংয়ের স্থানে প্রায় ৮ টি গাড়ি নিয়ে ধাওয়া করে চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলা হয় নেত্রীকে।

পামেলার সঙ্গে ধরা পড়েছেন তাঁর সঙ্গী প্রবীর দে’ও। সূত্রের খবর পামেলাকে মাদক সরবরাহ করতেন প্রবীর, এবং তিনি নিজেও একজন বিজপি নেতা। পামেলার কাছে মাদক মজুত আছে এই খবর অনেক দিন ধরেই ছিল পুলিশের কাছে। গতকাল হাতেনাতে দুজনকে পাকড়াও করার পর নেত্রীর হাতব্যাগ থেকে এবং গাড়ি থেকে পাওয়া যায় কয়েক লক্ষের মাদক।

তবে একদিনের মাথাতেই মোড় নিচ্ছে পামেলা মাদক কান্ডের কেস। যেখানে বিজেপি নেতা দিলিপ ঘোষ বলেছেন চক্রান্ত হলে আন্দোলন চলবে, সেখানে খোদ পামেলাই আঙুল তুলেছেন বিজেপির অপর একজনের দিকে। শনিবার আলিপুর আদালতে নিয়ে যাওয়ার সময় তিনি বলেন “আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। আমি চাই সিআইডি তদন্ত হোক। কৈলাস বিজয়বর্গীয় ঘনিষ্ঠ রাকেশ সিংহ যেন গ্রেফতার হয়। আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত হয়েছে।”

শেষমেশ ফাঁসিয়েছে রাখি বাঁধা ভাই? যদিও পামেলার এই অভিযোগকে উড়িয়ে দিচ্ছেন রাকেশ। তিনি জানিয়েছেন, এসবের কোন প্রশ্নই নেই। পামেলার সঙ্গে এককালীন ভালো সম্পর্ক ছিল। রাখিও বেঁধেছিলেন তাঁর হাতে, তবে বছর খানেক হল সম্পর্ক নেই তাঁদের। কিন্তু রাকেশ দেখছে অন্য গল্প। তিনি মনে করছেন কলকাতা পুলিশ জোর করে এইসব বলিয়ে নিয়চ্ছে পামেলাকে দিয়ে। রাকেশ এও বলেন “আমি থাকলে আমাকে ডাকুক পুলিশ। কৈলাস’জি জড়িত থাকলে, তাঁকেও ডাকুক।” তবে রাকেশ যাই বলুন না কেনো, ওয়াকিবহাল মহল দেখছেন গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকেই। আর ভোটের মুখে ঘরের ভেতরের এই ফাটল কোন মোড় নেবে সেটাই এখন দেখার।

36