ওয়েবডেস্কঃ চাপের মুখে আগেই নতি স্বীকার করেছে চিন । শুক্রবারই গালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় ফৌজের হাতে নিকেশ লালফৌজের চার সৈনিকের নাম প্রকাশ করেছে তারা। এবার গত বছরের ১৫ জুন চিনা আগ্রাসনের ভিডিও প্রকাশ করল তারা। আট মাসের নীরবতার পরে প্রথম চিনা জওয়ানদের হতাহত হওয়ার কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করার পাশাপাশি এবার এই ভিডিও শেয়ার। গোটা বিষয়টাকেই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ।

গতকালই প্যাংগং হ্রদের দুই পাড় থেকে সেনা অপসারণ সম্পূর্ণ করেছে চিন। তারপরই ভারতীয় সেনার সঙ্গে চিনা সেনাদের সংঘর্ষের এই ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে বেজিং। চিনের সরকারি টিভি ‘সিজিটিএন’-এ দেখানোও হয়েছে সেটি। চিনের দাবি, এই ভিডিও থেকেই পরিষ্কার ভারতীয় সেনারাই চিনের ভূখণ্ডে আগে প্রবেশ করে আগ্রাসন চালিয়েছিল। যদিও তাদের দাবি ও ভিডিওর দৃশ্যে বৈসাদৃশ্য রয়েছে। কেননা ফুটেজের একাংশে পরিষ্কার দেখা গিয়েছে চিনা সেনারা ভারতীয় সেনাদের উপরে ঝাঁপিয়ে পড়ছে। ভিডিওয় রাতের অন্ধকারে সংঘর্ষের দৃশ্যও দেখা গিয়েছে।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, রাশিয়ার তরফ থেকে লাগাতার চাপের মুখেই তাদের মৃত জওয়ানদের নাম ও এই ভিডিও প্রকাশ করতে একপ্রকার বাধ্য হয়েছে চিন। রাশিয়া অনেক দিন আগেই দাবি করেছে, গালওয়ানের রক্তাক্ত সংঘর্ষে অন্তত ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। মার্কিন গোপন রিপোর্টেও উঠে এসেছে চিনা ক্ষয়ক্ষতির বিবরণ। কিন্তু এনিয়ে কোনও মন্তব্য করেনি চিন। এমনকী, ওই সংঘর্ষে তাদের কোনও সেনার মৃত্যু নিয়েও নীরব ছিল তারা। এতদিন পরে বেজিং মুখ খোলায় প্রশাসনের উপরে ক্ষুব্ধ চিনের সাধারণ মানুষ। কেন এতদিন সংঘর্ষে মৃত সেনাদের নাম চেপে যাওয়া হয়েছে, তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও চিন মাত্র চারজনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে। তাঁদের মধ্যে একজন সেনা অফিসার।

49