ওয়েবডেস্ক ফেব্রুয়ারি, ১৮,২০২১;ভারতে ক্ষমতায় বিজেপি সরকার। এরপর শ্রীলঙ্কা এবং নেপাল দুই পড়শি দেশেও সরকার গড়বে বিজেপি! সেদেশেও ছড়িয়ে পড়বে তাঁদের পার্টি। আর পুরো পরিকল্পনাই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর মস্তিকপ্রসূত। কয়েকদিন আগে এমন মন্তব্য করেই শিরোনামে উঠে এসেছিলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব । এবার তাঁর সেই মন্তব্যের পালটা দিল ভারতের দুই পড়শি দেশ। শ্রীলঙ্কা যেমন সাফ জানিয়েছে, তাঁদের দেশের সংবিধানে এমন কোনও আইন নেই। অন্যদিকে, এই মন্তব্যে রীতিমতো ক্ষুব্ধ নেপাল। ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের কাছ থেকে এর ব্যাখ্যাও চেয়েছে কাঠমান্ডু।

বিপ্লব দেবের মন্তব্য প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে শ্রীলঙ্কার নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান নিমল পুঞ্চিহেওয়া জানান, কোনও পরিস্থিতিতেই বিদেশি কোনও দেশের রাজনৈতিক দল এদেশে তৈরি করা যাবে না। তাঁর কথায়, “শ্রীলঙ্কার যে কোনও রাজনৈতিক দল বিদেশি কোনও পার্টি বা দলের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেই পারে। কিন্তু নির্বাচনের আইন অনুযায়ী, বিদেশি দলগুলি এখানে এসে কোনওভাবেই নির্বাচনে অংশ নিতে পারে না।” এদিকে, নেপালও এই ঘটনায় প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ। কাঠমাণ্ডু পোস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইতিমধ্যে ভারতে নিযুক্ত নেপালের রাষ্ট্রদূত নিলাম্বর আচার্য ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের আধিকারিক অরিন্দম বাগচীকে ফোন করেছেন এবং বিপ্লব দেবের এই মন্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় দলের একটি সাংগঠনিক কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। সেখানে তিনি বলেন, “শুধু নিজেদের দেশে নয়। পড়শি রাষ্ট্রগুলিতে ছড়িয়ে পড়ার পরিকল্পনা রয়েছে দলের। নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় সরকার গঠন করার নকশা তৈরি করেছে বিজেপি।” কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপির চাণক্যর সাংগঠনিক ক্ষমতার প্রশংসা করে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “স্টেট গেস্ট হাউসে ২০১৮ সালে আমরা আলোচনা করছিলাম। সেই সময় বিজেপির উত্তর-পূর্ব জোনের পর্যবেক্ষক অজয় জামওয়াল বলেছিলেন, অমিত শাহ বলেছেন দেশের সব রাজ্যে বিজেপি প্রতিষ্ঠা পেয়ে গিয়েছে। এবার নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় দলের বিস্তার ঘটাতে হবে। সেখানে নির্বাচন জিতে সরকার গড়তে হবে।”

22