ওয়েবডেস্কঃ রাজ্যের অন্তর্বর্তী বাজেটেই ঘোষণা হয়েছিল। এবার সেই ঘোষণা মেনেই বাড়ানো হল পার্শ্বশিক্ষকদের ভাতা। রবিবার অর্থ দপ্তরের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল, ৩ শতাংশ হারে ভাতাবৃদ্ধি দ্রুত কার্যকর হওয়ার পথে। বেতন কাঠামো নির্দিষ্ট করার দাবিতে পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলন চলছিলই। এবার তারই সুফল মিলল।

বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাংলার অন্তর্বর্তী বাজেটে কার্যত কল্পতরু হয়ে উঠতে দেখা গিয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee)। তার মধ্যে অন্যতম ছিল পার্শ্বশিক্ষকদের পারিশ্রমিক বৃদ্ধির প্রস্তাব। তিনি জানিয়ে দেন, প্রতি বছর ৩ শতাংশ হারে বাড়বে বেতন। এছাড়া অবসরের সময় এককালীন ৩ লক্ষ টাকা এক্সগ্রাসিয়া পাবেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, সেই সঙ্গে তিনি জানিয়েছিলেন, অলচিকি হরফ পড়ানোর জন্য আরও ১৫০০ পার্শ্বশিক্ষক নিয়োগ করা হবে। এছাড়াও ৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেন মাদ্রাসাগুলির জন্যও।

তাঁদের বেতন কাঠামো নির্দিষ্ট করার দাবিতে দীর্ঘদিন ধরেই আন্দোলন চালাচ্ছিলেন পার্শ্বশিক্ষকরা। রাজ্য সরকারের কাছে বারবার এ নিয়ে দরবার করেও মিলছিল না সুরাহা। তাই নতুন বছরের প্রথমেই তাঁরা আন্দোলন আরও জোরদার করেন। ১৮ জানুয়ারি থেকে সল্টলেকে বিকাশ ভবনের অদূরে মঞ্চ বেঁধে শুরু হয় অবস্থান বিক্ষোভ। শীতের মধ্যে খোলা জায়গায় এভাবে অবস্থান চালিয়ে যাওয়ায় অসুস্থও হয়ে পড়েন অনেকে। কিন্তু আন্দোলন থেকে সরে আসেননি কেউ।

এরপর গত ৫ ফেব্রুয়ারিই তাঁরা নবান্ন অভিযানের সিদ্ধান্ত নেন। সেইমতো সুবোধ মল্লিক স্কোয়্যার থেকে মিছিল করে নবান্নমুখী হওয়ার সময়েই ধুন্ধুমার বেঁধে যায়। সুবোধ মল্লিক স্কোয়্যারে পার্শ্বশিক্ষক ঐক্য মঞ্চের সদস্যরা জমায়েত শুরু করার পরই বাধা দেয় পুলিশ। তৈরি হয় ব্যারিকেড। তা ভেঙে এগতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে মঞ্চের সদস্যদের ধস্তাধস্তি শুরু হয়। মিছিলকারীদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ। তাতেই বেশ কয়েকজন আহত হন। কেউ কেউ অসুস্থ হয়ে রাস্তায় বসে পড়েন। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ধর্মতলা চত্বরে। সেদিনই বিধানসভায় বাজেট পেশ করার সময় মুখ্যমন্ত্রী ওই ঘোষণা করেন পার্শ্বশিক্ষকদের জন্য।

41