ওয়েবডেস্ক: আগামী ১২ই ফেব্রুয়ারি থেকে দীর্ঘ ১১মাস পরে খুলতে চলেছে এ রাজ্যের স্কুল গুলি। ইতিমধ্যেই তার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু স্কুল গুলি খুললে করোনার সংক্রমণ আবার দ্রুত বৃদ্ধি পাবে কিনা তা নিয়ে অনেকের মনেই সংশয় রয়েছে। বিশেষ করে কেরালায় সম্প্রতি স্কুল খোলার পর যেভাবে দ্রুত করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে তাতে সংশয় আরো বাড়ছে। । দিন কয়েক আগেই কেরালায় দশম-দ্বাদশের পড়ুয়াদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে স্কুল। আর তারপরই পাশাপাশি দু’টি স্কুলের দশম শ্রেণির ১৯২ জন পড়ুয়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। একইসঙ্গে মারণ ভাইরাসের কবলে পড়েছেন ৭২ জন স্কুল কর্মীও। আশঙ্কার এই খবর মিলেছে কেরালার মালাপ্পুরম জেলা থেকে।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে মালাপ্পুরমের জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘একজন ছাত্রের শরীরে করোনার খোঁজ মিলতেই কন্ট্যাক্ট ট্রেসিংয়ের কারণেই বাকি পড়ুয়া ও কর্মীদের টেস্ট করানো হয়েছিল। পাশাপাশি দুটি স্কুলের পড়ুয়াদের সকলেরই করোনা টেস্ট করা হয়েছিল। কীভাবে এতজনের শরীরে করোনা ছড়িয়ে পড়ল, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

যদিও এরাজ্যে স্কুল খোলার আগে সংক্রমণ যাতে না ছড়িয়ে পরে তার জন্য ২৮ পাতার গাইডলাইন তৈরি করেছে রাজ্য শিক্ষা দফতর। বিভিন্ন বিদ্যালয়ে তা পাঠিয়ে দিয়ে বিদ্যালয় কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা আগে থেকেই নিতে বলা হয়েছে। কিন্তু গ্রাম গঞ্জের স্কুল গুলোতে গাইডলাইন পুরোপুরি ফলো করে স্কুল চালানো সম্ভব তা নিয়ে শিক্ষকদের মধ্যেই সংশয় তৈরি হয়েছে। এখন ১২ তারিখ স্কুলে পঠনপাঠন শুরু না হওয়া পর্যন্ত অভিভাবক থেকে শিক্ষা প্রশাসন সবার মধ্যেই সংশয় থাকছেই।

284