Categories
অন্য খবর

পাকিস্তানের জেলে অকথ্য অত্যাচার, ১৩ বছর পরে ফিরে এসে জানালেন ভারতীয়

৩১/১/২০২১,ওয়েবডেস্কঃ

ওয়েবডেস্কঃ পরিবর্তন ই জীবন , কখনো ভালো কখনো মন্দ। গুজরাটের ইসমাইল সামা তেমনই একজন। ২০০৮ সালের এক সকালে গরু চরাতে গিয়ে ঘটে গিয়েছিল এক মর্মান্তিক ঘটনা। তিনি ভাবতেও পারেননি বাড়ি ফিরতে তার লেগে যাবে তেরো বছর! পাকিস্তানের জেলে প্রবল অত্যাচার সামলে অবশেষে দেশে ফিরে এলেন সেই ব্যাক্তি। নিজে যেন বিশ্বাস করতে পারছেন না এই প্রত্যাবর্তন, কারণ এ ছিল তার কাছে এক অধরা স্বপ্ন।

কচ্ছ জেলার নানা দিনারা গ্রামের ৫০ কিলোমিটারের মধ্যেই ভারত-পাক সীমান্ত। ইসমাইলকে ফিরে পেয়ে সেখানে এখন উৎসবের আবহ। কিন্তু কী করে পাকিস্তানে চলে গেলেন আট সন্তানের বাবা ইসমাইল? ২০০৮-এর আগস্টে রোজকার মতোই গরু চরাতে গিয়েছিলেন তিনি। সেকথা মনে করতে গিয়ে এখনও যেন কেঁপে উঠছেন ইসমাইল, ”একটা স্করপিয়ন আমাকে ধাক্কা মারে। চোট পেয়ে সবদিক গুলিয়ে যায় আমার। দিক গুলিয়ে ফেলে হাঁটতে থাকি উদভ্রান্তের মতো। শেষ পর্যন্ত পরের দিন সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ পাক সেনা আমাকে ঘিরে ধরে। জানায় আমি তাদের দেশে ঢুকে পড়েছি। ওরা আমাকে হাসপাতালে নিয়ে গেল। সুস্থ হওয়ার পরে আমাকে আইএসআইয়ের হাতে তুলে দেওয়া হয়।”

এর পর শুরু হয় অকথ্য অত্যাচার। তাঁর কথায়, ”আমাকে ভারতের চর মনে করে প্রচণ্ড অত্যাচার করেছিল আইএসআই। সেই সময় মনে হয়েছিল আর বুঝি কোনওদিন বাড়িতে ফেরা হবে না। আতঙ্কে পাগল হয়ে যাচ্ছিলাম। পাকিস্তানে আটকে থাকা বহু ভারতীয়রই এমন অবস্থা। কেবল আল্লার কাছে প্রার্থনা করতাম। অবশেষে উনি আমার প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন। বাড়িতে ফিরতে পেরে আমার যেন পুনর্জন্ম হল।” অকথ্য অত্যাচার করে আইএসআই ইসমাইলকে দিয়ে স্বীকার করিয়ে নিতে চেয়েছিল তিনি ভারতের চর। কিন্তু সব মুখ বুজে সহ্য করেও ইসমাইল হার মানেননি। কিন্তু তবু তাঁকে গুপ্তচর হিসেবেই চিহ্নিত করে পাকিস্তানের আদালত। ২০১৭’র আগে পর্যন্ত ইসমাইলের বাড়ির লোক জানতেই পারেননি তিনি পাকিস্তানে বন্দি হয়ে রয়েছেন। তার আগের বছরই, ২০১৬ সালে পাক জেলে তাঁর সাজার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও ফেরা হয়নি। আটকে রাখা হয়েছিল জেলেই।

অবশেষে তার এত বছরের অপেক্ষার অবসান। সীমান্তরেখা থেকে ইসমাইলকে গাড়িতে করে নিয়ে আসেন তাঁর সৎ ভাই। পুরনো পাড়ায় ফেরার পরে তাঁকে দেখতে মানুষের ঢল নামে। স্থানীয় মসজিদে তাঁকে বসিয়ে ঘিরে ধরে গ্রামের মানুষেরা। কিন্তু ইসমাইল সবচেয়ে বেশি আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছেন নিজের ছেলেমেয়েদের দেখে। চল্লিশ পেরনোর আগে বন্দি হয়েছিলেন। এখন পঞ্চাশ পেরিয়ে ফিরে আসা। মাঝের ক’বছরে বড় হয়ে গিয়েছে সন্তানেরা। বাবাকে ভোলেনি তারাও। সেই পুনর্মিলনের দৃশ্য দেখে চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি গ্রামের বাকিরাও।

48

Leave a Reply