৩১/১/২০২১,ওয়েবডেস্কঃ

নারদ কান্ডে রাজ্যের মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করার অনুমতি চেয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় কে চিঠি দেন সিবিআই। নিয়মানুযায়ী সাংবিধানিক প্রধান হিসেবে মন্ত্রীদের নিয়োগ করেন রাজ্যপাল। তাই সেক্ষেত্রে চার্জশিট দাখিল করতে প্রয়োজন রাজ্যপালের অনুমতি।

২০১৬ সালের এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ে সামনে আসে নারদ কান্ড। দেখা যায় শাসক দলের একাধিক মন্ত্রী , সাংসদ টাকা নিচ্ছেন। ওই ফুটেজে দেখা যাবে অনেকেই পরে যোগদান করে বিজেপি তে ।তাদের মধ্যে কেউ কেউ ছিলেন মন্ত্রী ।তবে এখনো যারা মন্ত্রী রয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে পেশ করা হবে চার্জশিট।

এর আগেও সংসদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে চেয়ে লোকসভার অধ্যক্ষ কে চিঠি দিয়েছে সিবিআই। প্রসঙ্গত ওই ফুটেজে যাদের দেখা গিয়েছিল তাদের মধ্যে একজনের জীবনাবসান ঘটেছে। ২০১৮ সালে সাংসদ থাকাকালীন ই প্রয়াত হন সুলতান আহমেদ।

সম্প্রতি নারদ কান্ড নিয়ে নতুন করে পারদ চড়তে শুরু করলে যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় , শুভেন্দু অধিকারী কে কটাক্ষ করে বলেন, ” টিভিতে কাগজে মুড়ে টাকা নিতে তোমায় দেখা গেছিল , তলাবাজ তো তুমি। আবার বড় বড় কথা “।

সম্প্রতি শুভেন্দুর পাল্টা আক্রমনে বলেন, ” তাহলে বাবুসোনা তোমার বড় জ্যাঠা সুব্রত মুখপাধ্যায় এর কি হবে? তো।আর মেঝো জ্যাঠা মাস্টারমশাই সৌগত রায়ের কি হবে? তোমার পিসিমনি কাকলী ঘোষ দস্তিদারের কি হবে? আর তোমার কাকু ববি হাকিমের কি হবে? “

গত বিধানসভা ভোটের আগে নারদা স্টিং অপারেশন তোলপাড় সৃষ্টি করেছিল রাজ্য রাজনীতিতে। জানবাজারের সভায় দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ” আগে জানলে এঁদের টিকিট দিতাম না “।

50