Categories
করোনা প্রথম পাতা

কোভিড কথা: দেবজ্যোতি দে

কোভিড কথা দেবজ্যোতি দে

লড়াইটা একদিন করতেই হবে জানতাম,তবে প্রস্তুত ছিলাম না সময়টার জন্য যখন আমার এবং আমার স্ত্রীর শরীরে সেই পরজীবী অতিথিদের উপস্থিতি ধরা পড়লো।খবরের চ্যানেল গুলোর দৌলতে ক্রমাগত যে মৃত্যুভয় গ্রাস করছিল lockdown 1 এবং 2 এর শুরুর দিকে,সেটা একেবারে হয়ে গিয়েছিল may মাঝামাঝিতে একটা খবর পেয়ে।বাড়িতে নতুন ছোট্ট সদস্যের আগমন হতে চলেছে। করোনাভীতির পরিবর্তে একজন আরো বেশি পরিমানে করোনা সতর্কতা,কেননা ডাক্তার দেখাতে ও বিভিন্ন টেস্ট করাতে এক দুবার বাইরে যেতে হয়েছিল।তবুও মনোভাব সদর্থক রেখেছিলাম, যদিও মনের এক কোনে একটা আশঙ্কা থেকেই গেছিলো।কিন্তু পদ্মফুল পেতে হলে তো পাঁকে পা দিতেই হয়!!
আমাদের আশঙ্কায় সত্যি হলো।
স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞর পরামর্শে স্ত্রীর কোভিড টেস্ট(true nat test) করলাম 17th oct2020।প্রচন্ড কাশি ছিল এবং গন্ধ কম , যদিও আমার কোনো লক্ষণ ছিলোনা,সে জন্য আমার টেস্ট করাতেই চাইছিলো না। এবং 18th এ যথারীতি রিপোর্ট পজিটিভ।
বাড়ির সকলে কিংকর্তব্যবিমূঢ়।
ষাটোর্ধ বাবা ও পঞ্চাশোর্ধ মা প্রচন্ড ভয় পেয়ে যায় ও ভেঙে পড়ে।আমরাও খুব বিচলিত হয়ে পড়ি।কিন্তু ভেঙে গেলে চলবে না,একে অপরকে সাহস জোগাতে থাকি।
ও gynochologist কে সব জানাই এবং আমি কোভিড এর রিপোর্টে দেওয়া লিংকে ফোনে করে সব রকম গাইড লাইন বুঝে নেই।
আমরা স্বামী স্ত্রী ও বড় ছেলে একঘরে ,বাবা মা অন্য ঘরে একেবারে home isolation এ।অপেক্ষা করে ছিলাম স্বাস্থ্য দপ্তর বা প্রশাসনিক হস্তক্ষেপ এর, কিন্তু আশ্চর্যজনক কোনোটাই ঘটে নি। যাইহোক 17 দিন isolation এ থাকার পরে retest করাই, এবং দুজনেই যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী ছিলাম যে করোনা বাবাজী বিদায় নিয়েছেন। কিন্তু “রাখে হরি মারে কে” স্ত্রী আবারও পজিটিভ।
মাথার ওপর বাজ পড়ার মত, কী করি কিছুই বুঝে পাচ্ছিলাম না এর মধ্যে স্বাস্থ্য দপ্তর ও ব্লক থেকে ফোন 14 দিন isolation।আমি সব বুঝিয়ে বললাম,যে আমরা ইতিমধ্যে 17দিন একাকী গৃহবাসে ছিলাম, কিন্তু কোনো লাভ হলোনা।
গর্ভবতী স্ত্রী, এবং গর্ভস্থ বাচ্চার জন্য মন আনচান করতে থাকে,কিন্তু প্রকাশ করতেও পারছিনা।স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ ও নেগেটিভ রিপোর্ট না হলে দেখতে চাইছেন না,এরই মধ্যে বড় ছেলের জ্বর এল,যা আমাদের একেবারে ভেঙে দিয়ে গেল।আগে যতবার ভয়ের কথা বলেছি,বিশ্বাস করুন এই ভয়ের তুলনায় সেগুলো চুনোপুঁটি।বাড়িতে এক অবর্ণনীয় নিস্তব্ধতা।3 দিন পর ছেলের জোর কমল, কিন্তু ভয় কাটেনি তখন।17th nov ছটপড়ুয়া প্রাইমারী স্কুলে আমাদের তিনজনের antinbody test negative,কিন্তু রিপোর্টের হার্ড কপি দেওয়া যাবেনা বললো। মনকে শান্ত করতে পারলাম না,RT PCR টেস্ট করলাম স্ত্রীর, রিপোর্ট পজিটিভ।
বুঝতেই পারছেন what type of a roller coaster we’re on।
5 দিন পর আবার টেস্ট এবং এই বার ঝড় থামলো।সঙ্গে সঙ্গে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ কে visit করলাম,উনি আশ্বস্থ করলেন baby ঠিক আছে।
মাঝে kulikinfoline এক অনুষ্ঠানে ডাক্তার দেবব্রত রায় এর কাছে কিছু পরামর্শ পেয়ে আরো আস্বস্ত হই।আপাতত সবাই সুস্থই আছি, 2nd jan 2021 দ্বিতীয় পুত্র সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়েছে,এবং আমরা আরো সতর্ক।

118

Leave a Reply