ওয়েবডেস্কঃ বায়ু সেনার দুই মহিলা পাইলট ৭২ বছরের ইতিহাস বদলে দিয়ে নিজেদের বিস্তার করলেন মাটি থেকে সুবিস্তীর্ণ আকাশের বুকে। সাধারনতন্ত্রের প্যারেড এ দিল্লির মাটিতে এমনই নজির গড়লেন ভাবনা কন্থ এবং স্বাতী রাঠোর।

ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট ২৮ বছরের ভাবনা কন্থ প্রথম মহিলা ফাইটার পাইলট হিসেবে এদিন অংশ নেন বায়ুসেনার ট্যাবলোতে। সেই প্রতিরক্ষা ট্যাবলোতে লাইট কমব্যাট বিমান, হেলিকপ্টার ও সুখোই-৩০ ফাইটার বিমান প্রদর্শিত হয়। সেখানেই স্যালুটরত অবস্থায় দেখা যায় ভাবনাকে। অন্যদিকে ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট স্বাতী রাঠোর ছিলেন Mi-17 V5 হেলিকপ্টারে। মোট চারটি চপারকে সেই সময় দেখা যায় ফ্লাইপাস্ট প্যারেডে।

বিহারের বেগুসরাইয়ের মেয়ে ভাবনা কন্থ বর্তমানে রাজস্থানে কর্মরত রয়েছেন। ২০১৬ সালে তিনি দেশের প্রথম মহিলা ফাইটার পাইলট নির্বাচিত হয়েছিলেন। তবে তিনি একা নন, তাঁর সঙ্গে নির্বাচিত হন অবনী চতুর্বেদী ও মোহনা সিং। ভাবনা চালান মিগ-২১ বাইসন ফাইটার জেট। উল্লেখ্য, এই বিমানটিতেই সওয়ার ছিলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানও। তবে ভাবনা জানিয়েছেন, কেবল মিগ-২১-ই নয়, রাফালে কিংবা সুখোইয়ের মতো অন্যান্য ফাইটার বিমানও চালাতে চান তিনি।

অন্যদিকে রাজস্থানের নাগৌর জেলার ছোট্ট এক গ্রামে জন্মানো স্বাতীর ছোটবেলার স্বপ্নের হাত ধরেই ওড়েন আকাশে। স্কুলজীবনের শেষে তিনি এসিসির বায়ুসেনার শাখায় যোগ দেন। সেখানে থাকাকালীন তিনি শুটিংয়ে সোনা জিতেছিলেন। পরে ২০১৪ সালে বায়ুসেনার পরীক্ষায় প্রথমবারেই উত্তীর্ণ হন তিনি। নির্বাচিত হন ফ্লাইং ব্রাঞ্চে। তাঁর দাদা রয়েছেন ভারতীয় নৌসেনায়।

এই দুই নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে ইতিহাসের পাতায়।

26