ওয়েবডেস্কঃ গালওয়ানে চীন সেনাদের আকস্মিক হামলার সন্মুখীন হয়েছিলেন এক নিরস্ত্র এক বীর। ১৫জুন লাদাখ সীমান্তের সেই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনায় শহিদ হন কর্নেল সন্তোষ বাবু। যুদ্ধক্ষেত্রে অসীম সাহসিকতার প্রদর্শন, শত্রু মুখোমুখি বীরের মতো লড়াই এবং যোগ্য নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য সেনাবাহিনী র দ্বিতীয় সর্ব্বোচ্চ সন্মান মহাবীর চক্র -তে সম্মানিত করা হলো শহীদ কর্নেল সান্তোষ বাবুকে।

পূর্ব লাদেখের গালওয়ান উপত্যকায় ১৬বিহার রেজিমেন্ট এর কর্নেল ছিলেন তিনি। ১৫জুন চীনের আকস্মিক হামলায় প্রস্তুত ছিলেন না ভারতীয় সৈন্যরা ,অন্যদিকে লোহার রড ও কাঁটা লাগানো ব্যাট নিয়ে হামলা করে লালবাহিনী।এই হামলায় শহীদ হন ২০ জন বীর জওয়ান। তাদের নেতৃত্বে ছিলেন ৩৯ বছরের কর্নেল বিকামুল্লা সান্তোষ। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ভারতীয় সেনাদের তাতে ৪৫ চীনা সৈন্য প্রাণ হারায়।

ভদ্র ব্যবহার ও অল্পো কথার মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলেন সহকর্মীদের মধ্যে। কর্নেল এস শ্রীনিবাস রাও জানান ” সন্তোষ কে তাঁর নিজের রাজ্যের সেকেন্দরবাদে ২ বছরের জন্য বদলী করা হয় কিন্তু করোনা এর কারণে যাওয়া হয়নি। নিহত কর্নেল বলতেন এখন তার পরিবারের সাথেই দেশ কে তিনি রক্ষা করার সুযোগ পাবেন।কিন্তু আর তাঁর ফেরা হলো না “।
শহীদ কর্নেল সন্তোষ বাবুর পাশাপাশি আরোও ৫ বীর যোদ্ধা দের ‘বীর চক্র’ সম্মানে সম্মানিত করা হবে যা সেনাবাহিনীর তৃতীয় সর্বোচ্চ সম্মান। এছাড়াও ‘সূর্য চক্র’ সন্মান পাবেন আরোও ৩ জওয়ান।

23