প্রায় দুমাস ধরে নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লিতে ঐতিহাসিক কৃষক আন্দোলন চলছে। তার অংশ হিসেবে আজ দিল্লিতে ঐতিহাসিক ট্রাক্টর প্যারেডের সাথে সংগতি রেখে নজরকাড়া ট্রাক্টর মিছিল হল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জেও। এদিন দুপুরে ইটাহার থেকে একটি ট্রাক্টর মিছিল কসবা মোর হয়ে রায়গঞ্জ রেল ময়দানে পৌঁছায় দুপুর ১টার কিছু পরে। অন্যদিকে করণদিঘী ও কালিয়াগঞ্জ থেকে আরো দুটি ট্রাক্টর মিছিল শহরের একপ্রান্তে শিলিগুড়ি মোড়ে মিলিত হয়ে একসাথে রেল ময়দানে পৌঁছায়। কয়েকশ ট্রাক্টর সহ বেশ কয়েক হাজার মানুষ এরপর রেল ময়দানের কৃষক সমাবেশে জমায়েত হয়। ট্রাক্টর মিছিলে ট্রাক্টর গুলো জাতীয় পতাকার পাশাপাশি লাল পতাকায় সজ্জিত ছিল। দেখা যায় কংগ্রেসের পতাকাও। এই মিছিল কে মানুষের উৎসাহ ছিল চোখে পরার মত। রাস্তার দুই ধারে দাঁড়িয়ে মানুষ কে মিছিল প্রত্যক্ষ করতে দেখা যায়।

মিছিল শেষে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন অখিল ভারতীয় কিষাণ সংঘর্ষ মোর্চার উত্তর দিনাজপুর জেলা সম্পাদক সুরজিৎ কর্মকার। বিভিন্ন কৃষক নেতৃত্বরা রায়গঞ্জের সমাবেশে বলেন রাজ্যে স্বৈরাচারী সরকার দেশে বধির মানুষের দাবীকে অমর্যাদা করছে। দেশ জুড়ে মানুষকে তিলে তিলে মারার ষড়যন্ত্র করছে। প্রবল ঠাণ্ডাকে উপেক্ষা করেও জেলার ৯ টা এলাকা থেকে হাজার ট্রাক্টর মিছিল ২৭০ কিলোমিটার ঘুরে এসে পৃথকভাবে দুই মহকুমায় অংশ নিয়েছে। মিছিল শেষে দুইটা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
অখিল ভারতীয় কিষাণ সংঘর্ষ মোর্চার জেলা আহ্বায়ক সুরজিৎ কর্মকার সমাবেশে বলেন, অবিলম্বে কালো আইন প্রত্যাহার করতে হবে, শহীদ কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেবার পাশাপাশি শহীদ কৃষকদের পরিবারের একজনকে চাকরি দিতে হবে। কৃষকের উপর দেশ বিরোধীর মামলা করা হয়েছে তা প্রত্যাহার করে নিতে হবে।


সারাভারত কৃষক সভার জেলা নেতা উত্তম পাল, প্রাক্তন বামফ্রন্ট বিধায়ক শ্রীকুমার মুখার্জী, বীরেন সরকার, ক্রান্তিকারী কৃষক সভার নেতা, সংযুক্ত কৃষাণ সভার নেতা ভাষান রায় বক্তব্য রাখেন।

159