Categories
অন্য খবর

কর্মী ‘ছাঁটাই’ নিয়ে আইনি লড়াইয়ে রাজ্যপাল, শুনানী ২রা ফেব্রুয়ারি।

ওয়েবডেস্কঃ ফের নতুন করে সংঘাতে জড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। এবার দুই কর্মীর ‘ছাঁটাই’ নিয়ে আইনি লড়াই শুরু হল সংঘাত। বিস্তারিত জানতে রাজভবনের অতিরিক্ত মুখ্যসচিবকে ডেকে পাঠানো হয় কলকাতা হাই কোর্ট এর পক্ষ থেকে। আগামী ২ ফেব্রুয়ারি হাজিরা দেওয়ার কথা। এই ঘটনা নবান্ন-রাজভবনের দ্বন্দ্ব যে আরও বাড়িয়ে তুলল, তা স্পষ্ট। শুভঙ্কর বসু: ফের নতুন করে রাজ্য সরকারের সঙ্গে সংঘাতে জড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। এবার দুই কর্মীর ‘ছাঁটাই’ নিয়ে আইনি লড়াই শুরু হল। বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানতে রাজভবনের অতিরিক্ত মুখ্যসচিবকে ডেকে পাঠিয়েছে কলকাতা হাই কোর্ট । আগামী ২ ফেব্রুয়ারি হাজিরা দেওয়ার কথা। ঘটনায় দ্বন্দ্ব বাড়ল নবান্ন-রাজভবনের। 

দ্বন্দ্বের সূত্রপাত ঘটে গত নভেম্বরে। রাজভবনে কর্মরত পার্থপ্রতিম ঘোষ, মৌমিত্রা সরকারকে আচমকাই রিলিজ অর্ডার দেওয়া হয়। এরপর তাঁরা দু’জনেই রিলিজের চিঠি নিয়ে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। রাজ্যের তরফে তাঁদের বলা হয়, এই মুহূর্তে অন্য কোনও পদে নিয়োগের কোনও সুযোগ নেই। তাই তাঁরা যেন সরকারি নির্দেশে রাজভবনেই কাজ চালিয়ে যান। রাজ্য সরকারের এই নির্দেশ নিয়ে পার্থপ্রতিম ঘোষ ও মৌমিত্রা সরকার ফের রাজভবনে যান। কিন্তু সেখান থেকে তাঁদের আবার ফেরত পাঠানো হয়। এরপর আরও বেশ কয়েকবার তাঁরা রাজভবনের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন। তবে কোনও সাড়া পাননি।রিলিজ অর্ডার হাতে পাওয়ার পর থেকে তাঁদের বেতনও বন্ধ হয়ে গিয়েছে। ফলে প্রক্রিয়াটি কার্যত ছাঁটাইয়ের মতোই। 

এরপর  জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দু’জন কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন। বিচারপতি রাজশেখর মন্থার বেঞ্চে সোমবার মামলা ওঠে। তাতেই  বিচারপতি তলব করেন রাজভবনের অতিরিক্ত মুখ্যসচিবকে। তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয় রাজ্যকে না জানিয়ে কেন রিলিজ লেটার দেওয়া হল? কেন ঠিকমতো কর্মীদের সঙ্গে ঠিকমতো যোগাযোগ করা হয়নি? কেন তাঁদের আবেদনের কোনও জবাব দেওয়া হয়নি? সেসব সবিস্তারে জানাতে হবে রাজভবনের অতিরিক্ত মুখ্যসচিবকে। ২ ফেব্রুয়ারি মামলার পরবর্তী শুনানি। আপাতত আদালতের বিচার বিবেচনার দিকেই তাকিয়ে আচমকা কাজ হারানো দুই সরকারি কর্মী

37

Leave a Reply