আজ নতুন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে কৃষকদের বিক্ষোভের পঞ্চাশতম দিন।ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্ট কৃষক – সরকার দ্বৈরথের সমস্যা সমাধানের জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছিল। কমিটির সদস্যদের মধ্যে ছিলেন ভারতীয় কৃষক ইউনিয়নের জাতীয় সভাপতি ভূপিন্দর সিং মান। এবার তিনি নিজেই কমিটি থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়ে জানিয়ে দিলেন তিনি সব সময় কৃষকদের পক্ষে থাকবেন। প্রসঙ্গত কমিটির বাকি তিন সদস্যের মত ভূপিন্দর মান্নানের নাম কমিটিতে থাকায় শুরু থেকেই হৈচৈ হয়েছিল। কৃষক নেতারা জানিয়ে দিয়েছিল যে মান ইতিমধ্যে তিনটি নতুন কৃষি আইনকে সমর্থন করেছিলেন।সুতরাং তার মত সদস্য যে কমিটিতে আছে তাদের সাথে কৃষকরা কখোনই আলোচনায় অংশ নেবে না।

ভূপিন্দর সিং মান একটি চিঠি লিখে এ সম্পর্কে তথ্য দিয়েছেন। মান এই কমিটিতে তাকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য শীর্ষ আদালতকে ধন্যবাদ জানান। চিঠিতে তিনি লিখেছেন যে তিনি সর্বদা পাঞ্জাব ও কৃষকদের সাথে রয়েছেন। একজন কৃষক এবং সংগঠনের নেতা হওয়ার কারণে তিনি কৃষকদের অনুভূতি জানেন। তিনি কৃষক এবং পাঞ্জাবের প্রতি অনুগত। কৃষকদের স্বার্থ নিয়ে কেউ কখনও আপস করতে পারে না। তিনি এর জন্য যে কোনও বড় পদ বা সম্মানের ত্যাগ করতে পারেন। মান চিঠিতে লিখেছেন যে আদালত তাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা তিনি পালন করতে পারবেন না, তাই তিনি নিজেকে এই কমিটি থেকে আলাদা করেন।তবে ভূপিন্দর সিং মানের এমন ১৮০ ডিগ্রি অবস্থান বদলের সঠিক কারণ কি তা নিয়ে এখনও ধন্দে সংবাদ মাধ্যমও ।

কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত অন্যান্য নাম নিয়ে কৃষক নেতারা আপত্তি জানান। শীর্ষ আদালত গঠিত চার সদস্যের এই কমিটিতে বি কেইউর সভাপতি ভূপিন্দর সিং মান, শোনকরি সংগঠন (মহারাষ্ট্র) সভাপতি অনিল ঘনওয়াত, আন্তর্জাতিক খাদ্য নীতি গবেষণা ইনস্টিটিউট দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক প্রমোদ কুমার জোশী এবং কৃষি অর্থনীতিবিদ অশোক গুলতি রয়েছেন। অনিল ঘানওয়াত, অশোক গুলতি প্রমূখরা মিডিয়ায় লেখা তাঁদের নিবন্ধগুলিতে কৃষক আইনের পক্ষে মত দিয়েছেন।ফলে এই কমিটির সঙ্গে তাঁরা মোটেই আলোচনায় বসতে আগ্রহী নন বলে পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন আন্দোলনকারী কৃষক নেতারা।

23