Categories
খেলা

সিডনিতে গৌরবজনক ড্র ভারতের, ‘‌ওয়াল’‌ হয়ে উঠলেন বিহারী–অশ্বিন

১১/১/২০২১,ওয়েবডেস্কঃ হাতে মাত্র আট উইকেট। জয়ের জন্য প্রয়োজন ৩০৯ রান। টেস্টের পঞ্চম দিন। বিপক্ষে হ্যাজেলউড–লিঁও–স্টার্ক–কামিন্সের মতো বোলার। এই পরিস্থিতিতে আবার দিনের শুরুতেই আউট আজিঙ্ক রাহানে। বিরাট তো নেই–ই। রোহিতও আগেই আউট হয়ে ড্রেসিংরুমে.‌.‌.‌
এটুকুর পর যে কোনও ভারতীয় সমর্থক মনে করতেই পারেন, এত প্রতিকূলতা নিয়ে ম্যাচ জেতা দূর, বাঁচানোই সম্ভব নয়। কিন্তু এখানেই সোমবার ক্রিকেটবিশ্বকে বোকা বানাল টিম ইন্ডিয়া। তাঁরা বুঝিয়ে দিলেন বর্তমান ভারতীয় দল যেকোনও পরিস্থিতিতে লড়াই করতে প্রস্তুত। চোট পাওয়া ঋষভ পন্থ, চেতেশ্বর পূজারা, হনুমা বিহারী এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিন। চারজন শুধু ম্যাচ বাঁচালেনই না। দলকে জয়ের কাছাকাছিও প্রায় পৌঁছে দিয়েছিলেন। শেষপর্যন্ত অবশ্য সেটা হল না।

পন্থ–পূজারা আউট হলেও অশ্বিন–হনুমার জুটির সৌজন্যে ড্র হল সিডনি টেস্ট। সিরিজের প্রথম দু’‌টি টেস্টের একটি অজিরা জিতেছিলেন। একটিতে ভারত। সিডনিতে কিন্তু শুরু থেকেই চালকের আসনে চলে গিয়েছিলেন স্টিভ স্মিথরা। সেখান থেকে ম্যাচের পঞ্চম দিনে ম্যাচ বাঁচালেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। অজিদের দুই ইনিংসেই দুরন্ত ব্যাটিং করেন স্টিভ স্মিথ। দ্বিতীয় ইনিংসে ক্যামেরন গ্রিন, লাবুশানেরা তাঁকে যোগ্য সঙ্গত দেওয়ায় ভারতের সামনে ৪০৭ রানের লক্ষ্যমাত্রা দেয় অস্ট্রেলিয়া।
এরপর রোহিত–গিলের হাত ধরে শুরুটাও ভালই হয়। কিন্তু চতুর্থ দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগেই তাঁরা আউট হয়ে যান। এরপর পঞ্চম দিনে সবাই যখন তাকিয়ে রাহানে–পূজারা জুটির দিকে, তখন শুরুতেই আউট ভারত অধিনায়ক। তবে টিম ইন্ডিয়ার পালটা লড়াই এরপরই শুরু হয়। পন্থ, যিনি প্রথম ইনিংসে চোট পেয়েছিলেন তিনি নেমেই দ্রুত গতিতে রান তোলায় মন দেন। শুরুতে বেশ কয়েকবার জীবনদান পেলেও তারপর একেবারে অন্য মেজাজে ধরা দেন। উলটোদিকে পূজারাও ক্রিজ আঁকড়ে পড়ে থাকেন। একসময় মনে হচ্ছিল, ম্যাচ জিতেও যেতে পারত টিম ইন্ডিয়া। শেষপর্যন্ত এই জুটি অবশ্য ভাঙেন লিঁও। শতরান মাঠে ফেলে এলেও ৯৭ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন চোটগ্রস্ত পন্থ। কিন্তু ছয় মারতে গিয়ে আউট হয়ে যান। এরপর ২০৫ বলে ৭৭ রানের ইনিংস খেলে আউট হন চেতেশ্বর দিনের খেলা তখনও অনেকটাই বাকি। জয়ের লক্ষ্যমাত্রাও বেশ দূরে। এই পরিস্থিতিতে এক অনন্য লড়াইয়ের সাক্ষী থাকল ক্রিকেটবিশ্ব। হনুমা বিহারী এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিন। একজন ব্যাট করলেন সাড়ে তিন ঘণ্টার উপরে। দ্বিতীয়জন আবার তিন ঘণ্টার উপর ক্রিজে সময় কাটালেন। বিহারীর তো আবার হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট নিয়েই ব্যাটিং করলেন। তিনি ১৬১ বলে ২৩ রান। অন্যদিকে, অশ্বিন করলেন ১২৮ বলে ৩৯ রান। শেষপর্যন্ত ড্র করেই মাঠ ছাড়ল টিম ইন্ডিয়া। একাধিক খেলোয়াড়ের চোট–আঘাত থেকে শুরু করে ম্যাচ চলাকালীন অজি সমর্থকদের বর্ণবিদ্বেষমূলক মন্তব্য, এমনকী ম্যাচের আগে কোয়ারেন্টাইনের বিধিভঙ্গ নিয়ে অজি সংবাদমাধ্যমের একাধিক অভিযোগ। টিম ইন্ডিয়ার মনসংযোগ বন্ধ নষ্ট করতে কোনও কসুর করেনি অস্ট্রেলিয়া। তা সত্ত্বেও দাঁতে–দাঁত চেপে লড়াই করলেন অশ্বিন–বিহারী। কিংবদন্তি রাহুল দ্রাবিড়ের জন্মদিনে তাঁরা এদিন হয়ে উঠেছিলেন ‘‌দ্য ওয়াল’‌। অজি পেসারদের বিষমাখানো বাউন্সার পাঁজড়ে, হাতে খেয়েও ক্রিজ আঁকড়ে পড়েছিলেন দু’‌জনে। এমনকী ভাঙা আঙুল নিয়ে প্যাড পরে তৈরি ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজাও। ব্রিসবেনে চতুর্থ তথা ফয়শালার টেস্টে নামার আগে এই লড়াই কিন্তু আত্মবিশ্বাস যোগাবে টিম ইন্ডিয়াকে।

63

Leave a Reply