Categories
করোনা

সিলমোহর DCGI-এর, ভারতে ছাড়পত্র পেয়ে গেল করোনার দুটি টিকা।

৩/১/২০২১,ওয়েবডেস্কঃ

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে দেশবাসীর জন্য স্বস্তির খবর। ভারতের দুটি ভ্যাকসিন Covishield ও Covaxin সারা দেশে প্রয়োগের অনুমতি দিল ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া। তবে আপাতত শর্তসাপেক্ষে ও জরুরি ভিত্তিতে এই ভ্যাকসিন সারা দেশে দেওয়া হবে বলে জানিয়ে দিল DCGI. সম্পূর্ণ দেশজ দুটি ভ্যাকসিন Covishield ও Covaxin খুব শীঘ্রই বাজারে আসছে। তবে এখনই আপামোর দেশবাসীর টিকাকরণ হবে না। টিকাকরণ হবে জরুরি ভিত্তিতে। অর্থাত্, প্রয়োজন মতো এই ভ্যাকসিন-এর প্রয়োগ করা যাবে। এরই সাথে জাইদাস ক্যাডিলা হেলথকেয়ারের তৈরি ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালেও দেওয়া হল ছাড়পত্র।

জরুরিকালীন বিষয়টি তাহলে ঠিক কী! আসুন জেনে নিই। বিশেষজ্ঞদের মতে, যে কোনও ভ্যাকসিন-এর ট্রায়াল শেষ করতে অন্তত ৬ থেকে ৭ বছর সময় লেগে যায়। কিন্তু এই  মহামারীর সময় ট্রায়ালে এতটা সময় ব্যয় হলে মুশকিল। তাই যা করতে হবে তাড়াতাড়ি। ফলে স্বেচ্ছাসেবকদের শরীরে প্রয়োগের পর সেই ডেটার উপর নির্ভর করে চলবে সারা দেশে টিকাকরণ। নেওয়া হবে ড্রাই রান-এর ডেটা-ও। সারা দেশে ভ্যাকসিন বন্টন ও প্রয়োগের তদারকির জন্য কমিটি গঠন করেছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। সেই কমিটি ইতিমধ্যে দেশজ দুটি ভ্যাকসিনের আপতকালীন ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। এবার ডিসিজিআই জানিয়ে দিল, জরুরি ভিত্তিতে দুটি ভ্যাকসিনের প্রয়োগ করা যাবে।

DCGI ভি জি সোমানি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ”আমরা নিরাপত্তা নিয়ে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত না হয়ে কোনও ভ্যাকসিনে ছাড়পত্র দেব না। সব ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেই সামান্য জ্বর, মাথা যন্ত্রণা বা বমি বমি ভাবের মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। এর বাইরে বাকি সবটাই গুজব।” এবার সরকার চাইলেই দেশজুড়ে টিকাকরণ শুরু করতে পারে। সেক্ষেত্রে আর কোনও নিয়মের জটিলতা রইল না। এবার কোভিশিল্ডের প্রস্তুতকারক সেরাম ইনস্টিটিউট এবং কোভ্যাক্সিনের প্রস্তুতকারক ভারত বায়োটেকের সঙ্গে চুক্তি করবে কেন্দ্র। তারপরই দেশের ৩ কোটি ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারকে বিনামূল্যে দেওয়া হবে করোনার টিকা।

71

Leave a Reply