Categories
আশেপাশের খবর

শৌচালয়ের জন্য নেওয়া টাকা ফেরত দেওয়ার দাবিতে রায়গঞ্জে কাউন্সিলরের, ‘দুয়ারে পাওনাদার’!

রাজ্যজুড়ে যখন দুয়ারে সরকার কর্মসূচি নেওয়া হচ্ছে তখন রায়গঞ্জ পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে শৌচালয়ের জন্য টাকা নেওয়ার অভিযোগে সেই টাকা ফেরত দেওয়ার দাবিতে নিজেদের বাড়ির সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখালো ঐ ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। মজা করে স্থানীয়রা বলছে “দুয়ারে পাওনাদার” কর্মসূচি । রায়গঞ্জ পুরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলার পুস্পা মজুমদারের বিরুদ্ধে শৌচালয় দেওয়ার নাম করে টাকা নেওয়ার অভিযোগ এনে বিক্ষোভে সামিল হলেন বাসিন্দারা। শনিবার রায়গঞ্জ শহরের নিউ মিলনপাড়ার বাসিন্দারা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাদের অভিযোগ, তিন বছর আগে শৌচালয় করে দেওয়া হবে বলে কারও থেকে ১ হাজার, আবার কারও থেকে ২ হাজার টাকা নেন তৃণমূলের ওই কাউন্সিলার। সেই শৌচালয় আজ পর্যন্ত পেলাম না। আজ দেব, কাল দেব বলে কথা ঘুরিয়ে দিচ্ছেন কাউন্সিলার। নানা কারন দেখিয়ে তাদের বছরের পর বছর তাঁরা সুবিধা থেকে বঞ্চিত করে রেখেছেন তিনি।

তাদের আরও অভিযোগ, মহাজনের থেকে সুদে টাকা নিয়ে কাউন্সিলরকে টাকা দিয়েছেন। এজন্য প্রতিমাসে সুদ গুনতে হচ্ছে। কাঁচা শৌচালয় ব্যবহার করতে হচ্ছে। বর্ষাকালে বাড়িতে থাকা যাচ্ছে না। পাশাপাশি এদিন অনেকেই অভিযোগের সুরে বলেন, ‘এই এলাকায় আমাদের কাউকে ঘর দেওয়া হয়নি। অথচ আমরা ভাঙ্গা ঘরে থাকছি। ঘরের জন্য টাকা না দেওয়ায় কাগজপত্র জমা দেওয়া সত্বেও ঘর পাচ্ছি না

তবে কাউন্সিলর পুষ্পা মজুমদার জানিয়েছেন অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। তিনি কারো কাছ থেকেই কোনো টাকা নেননি। উল্টে তিনি নিজে ঠিকাদার কে ২ লক্ষ টাকা দিয়েছেন। ঠিকাদার কাজ না করে লুকিয়ে বেড়াচ্ছে। তার বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগ করেন কাউন্সিলর পুষ্পা মজুমদার।

উল্লেখ্য, রায়গঞ্জ পুরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের নিউ মিলনপাড়া এলাকায় দিন মজুর মানুষের বাস। অধিকাংশ বাড়ির মহিলারা মানুষের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করেন। পুরুষেরা কেউ ভ্যান চালায়, আবার কেউ দিনমজুরের কাজ করেন। বর্ষার সময় এই এলাকা কাদা ও জলে ভরে যায়। রাস্তাঘাট ও ড্রেনের অবস্থা বেহাল। এলাকার অধিকাংশ মানুষের বাড়িতে নেই পাকা শৌচালয়। ঘরের অবস্থা বেহাল। তাদের অভিযোগ, কাউন্সিলার এলাকার উন্নয়ন করেন না। তাদের পাশে থাকেন না

242

Leave a Reply