https://kulikinfoline.com/vid-20201207-wa0060-mp4/

অনেক বিপর্যয়ের পরেও কংগ্রেসের সাথে এখনও যে অনেক মানুষ আছে তার জন্যই বিভিন্ন জেলায় জাতীয় কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বিভিন্নরকম কর্মসূচি নেওয়া হচ্ছে। রায়গঞ্জে জাতীয় কংগ্রেস সমর্থকদের কৃষি বিল বিরোধী মিছিলে যোগ দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এমনি প্রতিক্রিয়া জানালেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন “রাহুল গান্ধী প্রথম মোদী সরকারের এই কৃষি বিল প্রত্যাহারের দাবীতে আন্দোলন শুরু করেছিলেন।মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারও এ এরাজ্যে কৃষকদের বঞ্চিত করে চলছেন। মমতা ব্যানার্জি বলে বেড়াচ্ছেন এরাজ্যে কৃষকদের রোজকার ৩ গুন বাড়িয়ে দিয়েছেন অথচ এ বাংলায় কৃষকরা চাষ করে ন্যূনতম মূল্য পাচ্ছেননা, কমদামে বিদ্যুৎ পাচ্ছেনা,কৃষি ঋন পাচ্ছেনা, কৃষকেরা আত্মহত্যা করছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের অন্তর্জলী যাত্রা শুরু হয়ে গেছে।অনেক নেতারাই তৃণমূল ছেড়ে অন্যদলে চলে যাওয়ার চেষ্টা করছে। যে দল ভাঙানোর খেলা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুরু করেছিলেন সেটাই বুমেরাং হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলেই সেই খেলা শুরু হয়ে গেছে৷ যে বিজেপিকে তিনি একসময়ে কার্পেট বিছিয়ে এরাজ্যে নিয়ে এসেছিলেন এখন সেই বিজেপি তার দল ভাঙানোর চেষ্টা করছে”।এদিন সাংবাদিক বৈঠকের পরে রায়গঞ্জের জেলখানা মোর থেকে জাতীয় কংগ্রেসের মিছিলে যোগ দেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। মিছিলে পা মেলান উত্তর দিনাজপুরের জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত। রায়গঞ্জের রাজপথ ধরে মিছিল গিয়ে শিলিগুড়ি মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।

66