২৭/১১/২০২০,ওয়েবডেস্কঃ ‌আটমাস পর জাতীয় দলের জার্সিতে মাঠে নামলেন বিরাটরা। আর প্রথম ম্যাচেই ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়ল ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপ। ৩৭৫ রানের বিশাল লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে আট উইকেটে ৩০৮ রানেই থেমে গেল ভারতের ইনিংস। একদিকে স্মিথ–ফিঞ্চের জোড়া শতরান, অন্যদিকে হ্যাজেলউড–জাম্পার দাপুটে বোলিংয়ের সৌজন্যে ৬৬ রানে প্রথম ওয়ানডে জিতল অস্ট্রেলিয়াই। কাজে এল না শিখর ধাওয়ান–হার্দিক পাণ্ডিয়ার দুরন্ত লড়াইও।
দিনের শুরুতেই স্টিভ স্মিথ এবং অ্যারন ফিঞ্চের জোড়া শতরানের সৌজন্য ভারতের সামনে ৩৭৫ রানের লক্ষ্যমাত্রা রাখে অস্ট্রেলিয়া। রান তাড়া করতে নেমে শুরুটাও ভালই করেছিলেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল এবং শিখর ধাওয়ান জুটি। কিন্তু ২২ রানের মাথায় মায়াঙ্ককে আউট করেন হ্যাজেলউড। এরপর ২১ রান করে আইপিএলে নিজের দলের সতীর্থ জাম্পার বলে আউট হন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিও। এরপর দ্রুত ফিরে যান শ্রেয়স আইয়ার এবং লোকেশ রাহুলও। মাত্র দু’‌রান করেই হ্যাজেলউডের শিকার হন শ্রেয়স। এবং পরে ১২ রান করে জাম্পার বলে আউট হন রাহুল।
এরপরই অবশ্য পালটা লড়াই শুরু করেন ধাওয়ান এবং পাণ্ডিয়া। বাঁ–হাতি ধাওয়ান একদিকে ইনিংস সামলাতে থাকেন, অন্যদিকে মারমুখী মেজাজে ধরা দেন হার্দিক। দু’‌জনে মিলে জুটিতে ১২৮ রানও যোগ করেন। এই জুটিতে ভর করেই টিম ইন্ডিয়া যখন ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করছে, তখন ফের আঘাত হানেন জাম্পাই। ৭৪ রান করে আউট হয়ে যান ধাওয়ান। এরপর হার্দিককেও ফেরান এই লেগস্পিনার। আউট হওয়ার আগে পাণ্ডিয়া ৭৬ বলে ৯০ রান করলেও দলকে জেতানোর জন্য তা মোটেই যথেষ্ট ছিল না। শেষপর্যন্ত ভারতের ইনিংস থামে নির্ধারিত ৫০ ওভারে আট উইকেটে ৩০৮ রানে। অজি বোলারদের মধ্যে সেরা বোলিংও অবশ্যই অ্যাডাম জাম্পার। ১০ ওভারে ৫৪ রান দিয়ে চারটি উইকেট নেন তিনি। অন্যদিকে হ্যাজেলউড নেন তিনটি এবং স্টার্ক একটি উইকেট।। এর আগে ব্যাট করতে নেমে দুরন্ত ছন্দে ব্যাটিং করেন দুই অজি ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ এবং অ্যারন ফিঞ্চ। মাত্র ৬২ বলে চোখ ধাঁধানো সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে বিরাট কোহলিদের সামনে রানের পাহাড় তৈরি করে দিলেন স্মিথ। তবে তিনি একা নন। ইনিংসের দুর্দান্ত সূচনাটা করেন অ্যারন ফিঞ্চ। আইপিএলে তাঁকে চেনা ছন্দে না পাওয়া গেলেও দেশের জার্সি গায়ে চাপাতেই জ্বলে উঠলেন। মারকাটারি ব্যাটিং করে ১৭তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি ঝুলিতে ভরে ফেললেন ফিঞ্চ। শামি থেকে বুমরাহ, জাদেজা থেকে চাহাল, কাউকেই রেয়াত করলেন না অজি তারকাদ্বয়। ১১৪ রান করে আউট হন ফিঞ্চ। স্মিথের সংগ্রহ ১০৫। তবে ওয়ার্নারের কট বিহাইন্ড আউট নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ৬৯ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। স্মিথ-ফিঞ্চ জুটির সৌজন্যেই ৬ উইকেটে ৩৭৪ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া। 

32